সস্তা হল বাইরে খাওয়া, কমল জিএসটি

0

২৮ শতাংশের কোঠায় পড়ে রইল মাত্র ৫০ টি সামগ্রী। রেস্তরাঁয় খাওয়ার বিলে জিএসটির কামড় কমল। জিএসটি নেটওয়ার্ক প্যানেলের প্রধান হিসেবে ১০ নভেম্বর শুক্রবার একথা জানিয়েছেন বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী এবং অর্থদফতরের মন্ত্রী সুশীল কুমার মোদি। তিনি বলেন, জিএসটি কাউন্সিলের ২৩তম বৈঠকে পণ্য পরিষেবা কর কাঠামোর অনেকটাই বদলে ফেলা হয়েছে। সাধারণ মানুষের ব্যাবহারের ১৭৮ টি সামগ্রীকে ২৮ শতাংশের কোঠা থেকে বের করে আনা হয়েছে। ফলে জিনিসের দাম কমছে। চিউইং গাম, চকোলেট, চুলের শ্যাম্পু থেকে গায়ে মাখার ক্রিমের দাম কমছে। জিএসটি কমছে টুথপেস্ট, ডিওডরান্ট, শেভিং ক্রিম, আফটারশেভ লোশনেরও। জুতো পালিশের ক্রিমেরও দাম কমছে। পাশাপাশি নিউট্রিশাস ড্রিঙ্কস সহ ১৭৭ টি পণ্য সস্তা হচ্ছে। এই সব পণ্যে সর্বাধিক জিএসটি ছিল ২৮ শতাংশ। এ বার কমে হল সর্বাধিক ১৮ শতাংশ। তালিকাভুক্ত ২২৮টি সামগ্রীর মধ্যে মাত্র ৫০টির ক্ষেত্রে জিএসটি’র সর্বাধিক কর ২৮ শতাংশ রয়ে গেল।

এ দিন সব রাজ্যের অর্থমন্ত্রীদের নিয়ে গুয়াহাটিতে জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। সেখানেই বেশির ভাগ পণ্যের জিএসটি হার সংশোধনের জোরালো দাবি তোলেন অসমের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। বিভিন্ন বণিক সভার তরফেও একই দাবি জানানো হয়।

এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে যে বিষয়গুলি জানা গেল সেগুলি হল।

১. মাত্র ৫০ টি সামগ্রীর ওপর ২৮ শতাংশ জিএসটি
২. সব রেস্তরাঁর ক্ষেত্রেই জিএসটি কমে হল ৫ শতাংশ
৩. পাঁচতারা হোটেলের রেস্তরাঁয় জিএসটি ১৮ শতাংশ
৪. রেস্তরাঁ ব্যবসা আর ইনপুট ট্যাক্স ক্রেডিটের সুযোগ পাবে না
৫. আউটডোর ক্যাটারিংয়ে জিএসটির হার ধার্য রইল ১৮ শতাংশ
৬. ১৫ নভেম্বর থেকে চালু হচ্ছে এই নতুন জিএসটি হার
৭. জিএসটি রিটার্ন জমা দেওয়া আরও সরলীকৃত করা হয়েছে
৮. করদাতাকে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে শুধু জিএসটিআর১ ফর্ম ভর্তি করতে হবে
৯. করদাতা মার্চ পর্যন্ত ৩বি ফর্ম জমা দেবেন।
১০. দেরি হলে জরিমানার পরিমাণ কমিয়ে ২০০ টাকা থেকে ৫০ টাকা করা হল
১১. কম্পোজিশন থ্রেশহোল্ডের সীমা বাড়িয়ে করা হল দেড়কোটি টাকা।