বেঙ্গালুরুর Razorpay পেল ১২৭ কোটির ফান্ডিং

1
বেঙ্গালুরুর ফিনটেক সংস্থা রেজর পে পেয়ে গেল ১২৭ কোটি টাকার ফান্ডিং। সংস্থার বর্তমান বিনিয়োগকারী টাইগার গ্লোবাল, ওয়াই কোয়েম্বাটোর এবং মেট্রিক্স পার্টনার একসঙ্গে যুক্ত হয়ে পেমেন্ট গেটওয়ে স্টার্টআপ রেজরপে-কে ১২৭ কোটি টাকার ফান্ডিং করল সম্প্রতি। 
রেজরপের দুই কর্ণধার। হর্ষিল এবং শশাঙ্ক।
রেজরপের দুই কর্ণধার। হর্ষিল এবং শশাঙ্ক।

এটা ছিল সিরিজ বি রাউন্ডের ফান্ডিং। ২০১৬ সালে সিরিজ এ রাউন্ডে এক কোটি পনের লক্ষ মার্কিন ডলার ফান্ডিং পেয়েছিল। সব মিলিয়ে তিন কোটি পনের লক্ষ মার্কিন ডলারের ফান্ডিং পেল রেজর পে। সংস্থার দুই কর্ণধার শশাঙ্ক কুমার এবং হর্ষিল মাথুর ২০১৩ সালে রেজর পে শুরু করেন। দুজনেই আইআইটি রুরকির প্রাক্তনী। রেজরপে শুরু করার আগে শশাঙ্ক মাইক্রোসফটের চাকরি করতেন। আর মাথুর কাজ করেছেন স্লামবার্গারে। সিরিজ এ রাউন্ডে বর্তমান বিনিয়োগকারীরা ছাড়াও ছিল তেত্রিশ জন অ্যাঞ্জেল ইনভেস্টরের একটি গ্রুপ। পাশাপাশি মাস্টার কার্ডও এতে শর্তসাপেক্ষ বিনিয়োগ করে। ২০১৩ থেকে ২০১৭ ব্যবসা বেড়েছে হুহু করে। রেজিস্ট্রির অব কোম্পানি থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী ২০১৫-১৬ অর্থবছরে যেখানে রেজরপের আয় ছিল মাত্র সাড়ে চার কোটি টাকা। সেখানে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে আয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫ কোটি আশি লক্ষ টাকা। যদিও লোকসানের পরিমাণও বেড়েছে এই অর্থবছরে। আগের অর্থবছরে যেখানে ২৮ লাখ ষাট হাজার টাকা লাভ করেছিল এই সংস্থা সেখানে ২০১৬-১৭ সালে ৫৪ লাখ নব্বই হাজার টাকা ঘটতিতে চলেছে এই সংস্থা।

সিরিজ বি-র ফান্ডিং থেকে ব্যবসা বাড়াতে চান শশাঙ্ক আর মাথুর। রেজরপে একটি পেমেন্ট গেটওয়ে সংস্থা। অনলাইনে টাকা লেনদেন করার ক্ষেত্রে ওদের সফ্টঅয়্যার অ্যাজ সার্ভিস মডেল ইতিমধ্যেই জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে। ওদের প্ল্যাটফর্ম থেকে টাকা লেনদেনে ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড, নেট ব্যাংকিং, মোবাইল ওয়ালেট সব বন্দোবস্তই আছে। ফলে রেজরপে সব অপশনের জন্যেই কার্যকর। কিন্তু বৃদ্ধিতে আরও গতি আনতে চান এই দুই উদ্যোগপতি। ফলে ব্যবসায় অ্যানিম্যাল বুস্ট চান ওরা। আর সেই জন্যে আড়ে বহরে বাড়াতে হবে টিমও। সব মিলিয়ে ব্যবসাকে আরও বড় স্কেলে তুলে নিতে ব্যবহার করা হবে এই ফান্ড।