১১৪ বছর পরেও 'নাহুমস' আছে নাহুমসেই

0

কতরকমের কেকই না আজকাল পাওয়া যায়। চকোলেট... ফ্রুট... কত স্টার্টআপ শুধু কেকের ব্যবসাতেই জমিয়ে দিয়েছে। কিন্তু এই কলকাতার কেকের মানচিত্রে রাজধানী কেবল নিউমার্কেট। শুধু ক্রিসমাসের আগে নয়, গোটা বছরই এখানে রেশন দোকানের মত লাইন দিয়ে কেক কিনতে আসে কলকাতা। কেননা এখানেই ১১৪ বছর ধরে কলকাতাকে কেক খাইয়ে আসছে নাহুমস। ইহুদি সাহেবের এই দোকান আজও ধরে রেখেছে তার প্রাচীন ঐতিহ্য।

নতুন বছরে বাকি সব কিছুরই বয়স যখন এক বছর করে বাড়ল সেই সঙ্গে বয়স বাড়ল কলকাতার পুরনো এই কেকশপেরও। নতুন বছরে নাহুমস অতিক্রম করল ১১৪ বছর। রিচ ফ্রুট স্পেশাল থেকে গরম পুডিং স্বাদে আস্বাদে শহরবাসীকে গত ১১৪ বছর ধরে মাতিয়ে রখেছে এই স্পেশ্যাল কেক শপ।

শতবর্ষ পূরণে গর্বভরে নিজেদের দোকানের ইতিহাস রোমন্থন করলেন নাহুমসের বর্তমান মালিক আইজেক নাহুম। ইজরায়েলে পূর্বপুরুষের ভিটে সেখানেই থাকেন। শুধু শীতের দু'মাস থাকেন কলকাতায় । আর এই দু'মাস কর্মচারীদের হাতে নয় নিজেই দায়িত্ব নেন দোকানের। হিসাব থেকে দোকানের খাবারের কোয়ালিটি সবটাই যাচাই করেন নিজে। ৮০ ছুঁইছুঁই এই তরুণের সঙ্গে নিউমার্কেটের নাহুমসের সম্পর্ক প্রায় ৬৫ বছরের। ইংল্যান্ডে পড়াশোনা শেষ করে কলকাতায় ফিরে দোকানের দায়িত্ব নেন। স্মৃতিবিজড়িত আইজ্যাক বলছিলেন কলকাতাকে বড় ভালবাসতেন তাঁর ঠাকুরদা। তাই কলকাতায় তৈরি করেছিলেন এই কেক শপ। তিনিই উদ্বোধন করেন। ফলে নাহুমস আইজ্যাকের শুধু ব্যবসা নয় বরং তাঁর পরিবারের ইতিহাস।

দোকানের ইতিহাস বলতে গিয়ে আবেগাপ্লুত বৃদ্ধ আইজেক। জানালেন বিদেশে থাকলেও পরবর্তী উত্তরসূরিও আসতে চায় এই ব্যবসায়। আবেগ আর স্বাদের মেলবন্ধন আছে বলেই আশপাশে ছড়ানো ছিটানো কেকের দোকান থাকেলও কেউই জায়গা নিতে পারেনি নাহুমসের। কেক থেকে প্যাটিস বিস্কুট থেকে কুকিস প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ রকমের সম্ভার নিয়ে কলকাতাবাসীর মন জয় করেছে সুবিশাল এই কেকশপ।

হিন্দু,মুসলিম, পার্সি কিংবা মাড়োয়ারি মনপসন্দ কেকের হদিস পেতে সকলেই ভিড় জমান এই কেকশপে। কলকাতার বিখ্যাত গলি হগ মার্কেটে রমরমিয়ে চলে নাহুম পরিবারের ব্যবসা। ক্রেতাদের অনেকেই জানিয়েছেন, এই শপের প্রধান আকর্ষণ চকলেট, স্ট্রবেরি কেক কিংবা রাম বল। তবে শীতের সময় প্রধানত বড়দিন এবং নতুন বছরে ক্রেতাদের চোখের মণি হয়ে ওঠে রিচ ফ্রুট কেক। তাদের রিচ ফ্রুট কেকের মধ্যেও রয়েছে স্পেশালিটি। শীতে চাহিদার তুঙ্গে থাকে নাহুমস স্পেশাল পুডিং। বিকেলে গরম পুডিং হাতে নিয়ে লোভ সামলানো বেশ কঠিন। 

এছাড়াও সবসময়ের জন্যই রয়েছে ব্রাটুনি, ব্ল্যাক ফরেস্ট, ক্রুজের মতো নানা কেক ও পেস্ট্রির সম্ভার । আগের চেয়ে এখন অনেক নতুন ধরণের কেক তৈরি করছেন এঁরা। ফলে স্টক বেড়েছে। যেমন নতুন সংযোজন বিস্কুট। হাতে তৈরি এই বিস্কুট প্যাকেট এর পর প্যাকেট সেজেগুজে তৈরি হয়ে রয়েছে এই দোকানে। আমরা যখন দোকান থেকে বেড়িয়ে আসছি প্রবীন আইজ্যাক নাহুমস বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বললেন জয় হিন্দ। অল দ্য বেস্ট। চোখের কোণে চিকচিক করে উঠল তাঁর নস্টালজিয়া। কলকাতার প্রতি তাঁর একান্ত প্রেম।

Related Stories