২০১৬-য় রতন টাটার স্টার্টআপ শপিং

0

শিরোনামে আবার রতন টাটা। নতুন বছরে ভারতীয় স্টার্টআপের জন্য দ্বিতীয় ব্যক্তিগত বিনিয়োগ করলেন তিনি। কিছুদিন আগেই এক অনুষ্ঠানে উনি বলেছিলেন যে তিনি একমাত্র সেইসব স্টার্টআপেই বিনিয়োগের কথা ভাববেন যাদের আইডিয়া তাকে উদ্দীপ্ত করবে, যাদের সাথে প্রথম সাক্ষাতেই তিনি কোন সম্ভাবনার কথা উপলব্ধি করবেন। আর এরকমই এক স্টার্টআপ হল Tracxn, স্টার্টআপ ইন্টেলিজেন্স এবং মার্কেট রিসার্চ নিয়ে কাজ করার জন্য ২০১৩ সালে বিনিয়োগকারী নেহা সিং (প্রাক্তন Sequoia Capital) এবং অভিষেক গোয়েল (প্রাক্তন Accel Partners) Traxcn - এর জন্ম দেয়। ইন্টেলিজেন্স ডেটা অ্যানালিসিস আর রিসার্চের মাধ্যমে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, প্রাইভেট ইকুইটি ফার্ম বা কর্পোরেট ডেভেলপমেন্টের মতো বিষয় গুলোতে তথ্যভিত্তিক রিপোর্ট তৈরি করা এবং বিনিয়োগের জন্য আকর্ষণীয় স্টার্টআপ খুঁজে বের করার কাজ করে এই স্টার্টআপ সংস্থা। টাটা সন্সের চেয়ারম্যান এমিরেটস এবার অপ্রকাশিত মূল্যের বিনিয়োগ করলেন এই স্টার্টআপে।

Tracxn এর আগে ফ্লিপকার্টের মতো সংস্থার থেকেও উদ্যোগ পুঁজি পায়। এছাড়াও শচিন বনসল, বিনি বনসলের মতো নাম গুলোও জড়িয়ে আছে সংস্থার বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। ২০১৫ সালে Series A রাউন্ডে SAIF পার্টনারস থেকে ৩.৫ মিলিয়ন ডলার উদ্যোগ পুঁজি পায় এরা। রিপোর্ট অনুযায়ী Tracxn এর দাবি তাদের ক্লায়েন্ট বেস প্রায় ৪০০ শতাংশ বেড়েছে গত এক বছরে। Andressen Horowitz, Sequoia, Soft Bank, Google Capital, GE এবং LG র মতো নামগুলো তাদের ক্লায়েন্টের তালিকায় আছে। ইদানীং একটা ব্লগে Tracxn জানিয়েছে যে বর্তমানে তাদের প্রায় সাড়ে ছয় হাজার পেইড ইউজার আছে এবং সারা বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে আছে তাদের ক্লায়েন্ট। প্রায় ২৫ মিলিয়ন কোম্পানি আছে তাদের প্ল্যাটফর্মে। সংস্থার সি.ই.ও এবং প্রতিষ্ঠাতা নেহা সিংহের মতে “ রতন টাটা যে আমাদের নতুন ধরণের প্রোডাক্ট অফারিং এর মধ্যে ভ্যালু খুঁজে পেয়েছেন, সেই জন্য আমরা গর্বিত। মিস্টার টাটার অমূল্য অভিজ্ঞতা থেকে শেখার জন্য আমরা মুখিয়ে আছি, এই অভিজ্ঞতাই Tracxn কে পরের পর্যায়ে পৌঁছাতে অবশ্যই সাহায্য করবে।

প্রতিষ্ঠাতা অভিষেকের মতে “রতন টাটা নামটাই আমাদের জন্য অনেক কিছু। আমাদের প্রায় সবার প্রাত্যহিক জীবনের সাথে টাটা নামটা ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গেছে। আমাদের সবার জীবনধারণের মাত্রাটাও যেন উনি বদলে দিয়েছেন নিজের বিশ্বাস আর ভাবনার মাধ্যমে। ওনার পরামর্শে আমাদের স্টার্টআপ কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাওয়ায় আমরা সত্যিই ভাগ্যবান। বর্তমানে আমরা প্রায় ২০ টা দেশে নিজেদের অপারেশন চালু করেছি। ওনার ইউনিক আইডিয়া আমাদের সংস্থাকে আরও বড় হতে নিশ্চয়ই সাহায্য করবে, গতানুগতিক পথের বাইরে গিয়ে চিন্তা করার যে শক্তি ওনার আছে, সেটাই আমাদের পাথেয়”।

ইন্টারনেট যেমন বিভিন্ন ডেটা বিশ্লেষণের মাধ্যমে অ্যাঞ্জেল ইনভেস্টর বা প্রাইভেট ইকুইটি সংস্থার কাজ অনেক সহজ করে দিয়েছে, তেমনি আবার সঠিক তথ্যের অনুসন্ধান বা সেগুলো বিশ্লেষণ করার কাজটা এখনও অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল যেমন নিজেদের সম্ভাব্য বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগকারী সংস্থার আর্থিক তথ্য, পরিসংখ্যান নিজেরাই গবেষণা করেন, তেমন অনেক সংস্থা আছে যারা ভালো লেনদেন, বিনিয়োগ বা পার্টনারশিপের বিষয়ে ভেঞ্চার ইন্টেলিজেন্স বা মার্কেট রিসার্চ প্ল্যাটফর্মের ওপর ভরসা করে। CB Insights, Mattermark, Venture Scanner PrivCo, Unomy, Data Fox, Crunch Base এবং Owler এর মতো নাম গুলো এই বিষয়ে পারদর্শিতার সাথে কাজ করে চলেছে শেষ কয়েক বছর ধরে।

ইওর স্টোরির মত:

আন্তর্জাতিক বাজারে যখন কিছু কিছু দেশের স্টার্টআপের কাজ কর্ম বেশ চোখে পড়ার মতো, ভারতও সেই দৌড়ে পিছিয়ে নেই একেবারেই। ২০১৫ তেই শুধু ভারতীয় স্টার্টআপে বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৯ বিলিয়ন ডলার। সরকারও এই বিষয়ে নজর রেখেছে। শেষ ইউনিয়ন বাজেটে প্রায় দশ হাজার কোটি টাকার অনুমোদন পাওয়া গেছে ভারতীয় স্টার্টআপের জন্য। ২০১৬ তে এসেও আমরা পিছিয়ে নেই। আগামী ১৬ই জানুয়ারি থেকে সারা দেশ জুড়ে শুরু হতে চলেছে ‘স্টার্টআপ ইন্ডিয়া’ অভিযান। Tracxn বা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী সংস্থার জন্য অনেক ভালো কাস্টমার রয়েছে ভারতীয় বাজারে। সাথে রতন টাটার সাহায্য সংস্থার উন্নতিতে আরও অনেক বেশি সাহায্য করবে এবং সাথে আরও অনেক বিনিয়োগের পথ সহজ হয়ে উঠবে এর মাধ্যমে।

(Disclaimer: রতন টাটা ইয়োর স্টোরিরও একজন বিনিয়োগকারী)

( লেখা – হরষিত মাল্য, অনুবাদ – নভজিত গাঙ্গুলী )