এমব্রয়ডারির দুনিয়ায় বরুণের ই-কমার্স

0

২০১৩ সালে শুরু। আর মাত্র দু'বছরের মধ্যে নিজের একটা জায়গা করে নিয়েছে একটি অনলাইন কেনাকাটার সংস্থা। ই-কমার্সের দুনিয়ায় আজ নিজেই একটা নাম EmbroideryMaterial.com (EMC). বিজনেস টু বিজনেস এই স্টার্টআপের নামেই বোঝা যায় এই সংস্থা কোন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। হ্যাঁ, এমব্রয়ডারি। পুঁতি, পাথর, চুমকি ইত্যাদির সাহায্যে পোশাককে আরও আকর্ষণীয় করার কাজ। এমব্রয়ডারি মেটিরিয়াল ডট কম বা ইএমসি এমব্রয়ডারি করে না, এ জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস সরবরাহ করে থাকে। শুধু পুঁতি, নকল পাথরই নয়, এমব্রয়ডারি করার জন্য বিভিন্ন আকৃতির কাঠের রিং, সূচ ও অন্যান্য সামগ্রীও যোগান দেয় ইএমসি।


বরুণ কুমারের কথা

EMC-র কাজ সহজ কথায় বললে দ্বিমুখী। উৎপাদনকারীদের থেকে এমব্রয়ডারির প্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহ করা এবং যে সব সংস্থা এমব্রয়ডারি সংক্রান্ত কাজ করে তা তাদের সরবরাহ করা। ইএমসি'র গ্রাহকদের মধ্যে রয়েছে ছোট বুটিক থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ডিজাইনার কিংবা এক্সপোর্ট হাউস। ইএমসি শুরু করার আগে এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর বরুণ কুমার মেয়েদের পোশাকের একটি এক্সপোর্ট হাউসে Production Consultant হিসাবে কাজ করতেন। প্রোডাকশনের পাশাপাশি সেখানে মূলত স্যাম্পলিংয়ের কাজটাই দেখতেন তিনি। ট্রেন্ড অনুযায়ী কোনও কোনও জিনিসের স্যাম্পল রেডি করতে সপ্তাহ পার হয়ে যেত।সেখান থেকেই তিনি বুঝতে পারেন ই-কমার্সে এমব্রয়ডারির জিনিসপত্র সাড়া ফেলবেই।


ব্যর্থতা থেকেই সাফল্য

ব্যবসা করতে গিয়ে একবার তিক্ততার স্বাদ পেয়েছিলেন বরুণ। ইএমসি শুরু করার আগে পোশাক তৈরির একটি ব্যবসা ছিল তাঁর। কী না তৈরি হোত সেখানে! হোটেলের ইউনিফর্ম থেকে ডিজাইনার পোশাক। সঙ্গে ভ্যারাইটি রেডিমেড পোশাক। আর চলত বিদেশে পোশাক রফতানি। একটা সময় ছিল যখন বরুণের সংস্থায় পে রোলে ছিলেন শ'খানেক কর্মী। কিন্তু সাফল্য দীর্ঘস্থায়ী হল না। ব্যবসার রাশ ধরে রাখতে পারলেন না বরুণ। একটি ফার্মকে বিক্রি করে দিলেন তাঁর সংস্থা। নিজেই সেখানে যোগ দিলেন প্রোডাকশন কনসালন্ট্যান্ট হিসাবে। বছর খানেক কাজও করেছিলেন। জীবনে ফোকাস না রাখতে পারলে কী হয়, সেটা তখন ভালোভাবেই বুঝেছিলেন বরুণ। কী করা উচিত সেটাও বুঝতে পারলেন। ২০১৩ সালের এপ্রিলে নিজের জন্মদিনেই কাজটা ছাড়লেন আর সেই বছরই জুনে একাই শুরু করে দিলেন EmbroideryMaterial.com বা ইএমসি। কিছুদিন পরে ব্যবসায় হাত লাগান বরুণের স্ত্রী সিমি বিশ্বাস এবং বন্ধু ভূপিন্দর সিং।

ব্যবসা চলছে কেমন?

ব্যবসা খারাপ চলছে না। কিন্তু ই-কমার্সের এই দুনিয়ায় কড়া প্রতিযোগিতা। বিশেষ করে একই ধরনের ব্যবসায় রয়েছে etsy.com, Dawanda.com-এর মতো নামজাদা সংস্থা। এমব্রয়ডারি সামগ্রীর বাজারে দুটি সংস্থাই এক্লক্লুসিভ ভ্যারাইটি দিয়ে থাকে। প্রতিযোগিতা যাই হোক পিছিয়ে থাকতে রাজি নন বরুণও। তাই তাঁর সংস্থার ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মটিকে শক্তিশালী করতে ১০ লাখ মার্কিন ডলার লগ্নির খোঁজে রয়েছেন তিনি।


ইএমসি'র ইউএসপি

এমব্রয়ডারির দুনিয়ায় ইন্টারন্যাশনাল ট্রেন্ড কী চলছে তা নিয়ে নিরন্তর গবেষণা ও আপডেটিং। এটাই তাঁর সংস্থার সবচেয়ে বড় সেলিং পয়েন্ট বলে মনে করেন বরুণ কুমার। এর সঙ্গে নজর রাখা হয় স্থানীয় বাজারের দিকে। কোন জিনিসের কেমন চাহিদা তার খোঁজ রাখা হয়। সেইমতো যোগানের ব্যবস্থা মজুত রাখা যায়। যাতে কাস্টমারের চাহিদা পূরণে কোনও ফাঁক না থাকে। দক্ষ শিল্পীদের দিয়ে চিন, জাপান, চেক রিপাবলিকের মতো দেশে চাহিদা অনুযায়ী এমব্রয়ডারির জিনিসও পাঠিয়ে থাকে ইএমসি। ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্টের জন্য টাই-আপ রয়েছে Pay Pal-এর মতো সংস্থার সঙ্গে। ডোমেস্টিক অর্ডারের জন্য রাখা হয়েছে Pay U ডেবিট/ক্রেডিট কার্ডের ব্যবস্থা। ক্যাশ অন ডেলিভারির (COD) জন্য সংস্থা ব্যবস্থা রেখেছে Fed Ex-এর।