ব্যবসা করতে চান? পরিকল্পনা নিয়ে সতর্ক হোন

0

নতুন কোনও ব্যবসার পরিকল্পনা যদি আপনার মাথায় ঘুরপাক খেতে থাকে, তবে সতর্ক থাকুন। সাবধানবাণী শুনিয়ে ব্রিটেনের বিখ্যাত কম্পিউটার বিজ্ঞানী তথা ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্ট পল গ্রাহাম বলছেন, ব্যবসা শুরুর প্রথম পর্বটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কী ব্যবসা করবেন, ঠিক করতে যদি ভুল হয়ে থাকে, তবে সাফল্য আসবে না কিছুতেই। ব্যবসা শুরু হয় ‘গ্রেট আইডিয়া’ থেকে, বাংলায় যাকে বলা যেতে পারে উত্কৃষ্ট পরিকল্পনা। এটাই নাকি সফল ব্যবসার বীজ। যদি বীজ ভাল না হয়, তবে মিষ্টি ফল পাবেন কী করে? কোন ব্যবসা শুরু করবেন তার পরিকল্পনাকে তিন ভাগে ভাগ করা যেতে পারে বলে গ্রাহাম জানিয়েছেন। উত্কৃষ্ট পরিকল্পনা, নিকৃষ্ট পরিকল্পনা। তিন নম্বর পরিকল্পনা হল মরিচীকার মতো। আপাতদৃষ্টিতে মনে হবে সামনেই ওয়েসিস। কিন্তু এগোলে দেখবেন নীরস বালি, শুধুই বালি।

গ্রাহাম যাকে মরীচিকার সঙ্গে তুলনা করেছেন, সেটা কেমন? পুষ্যিদের জন্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কের পরিকল্পনা দিয়ে তিনি গোটা ব্যাপারটা ব্যাখ্যা করলেন। এ এমন এক নেটওয়ার্ক, যেখানে আপনি আপনার পুষ্যির হরেক ছবি দিতে পারবেন। প্রতিবেশীর হুলো বেড়ালের ছবিতে নিজের মন্তব্য করে পছন্দ-অপছন্দের কথা জানিয়ে দিতে পারেন। বিখ্যাত এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষণে গ্রাহামের মুখ থেকে এই পরিকল্পনা শুনে অনেকেই বললেন ‘গ্রেট আইডিয়া’। উল্টো সুরে গ্রাহাকমের বক্তব্য, এই পরিকল্পনার সঙ্গে মরীচিকার তুলনা করা যায়। অনেক পরিকল্পনা শুনতে ভাল, কিন্তু তা আসলে নিকৃষ্ট। কেন? গ্রাহামের কথায়, ‘‘পছন্দ আর ব্যবহারের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। পুষ্যিদের সোশ্যাল নেটওয়ার্কের ধারণা নতুন। অনেকে পছন্দও করতে পারেন। কিন্তু সাধারণ মানুষ ব্যবহার করেন শুধুমাত্র ফেসবুক। পেট লাইফের মতো ওয়েবসাইট নিয়ে মাথা ঘামানোর মতো সময় কোথায়?’’ ব্যবসার সঙ্গে যেহেতু ক্রেতারা জড়িত, তাই ক্রেতাই শেষ কথা। ক্রেতাদের মনের গভীরে লুকিয়ে থাকা হাজারো পছন্দ-অপছন্দ ছাড়াই বাছাই করে কী ধরনের ব্যবসা করা উচিত, কোনটা করা উচিত নয় তার একটা ধারণা দিয়েছেন পল গ্রাহাম।

ভিটামিন ক্যাপসুল না‌কি পেইন কিলার

পেট লাইফকে ওয়েবসাইটে ভিটামিন ক্যাপসুলের সঙ্গে তুলনা করেছেন গ্রাহাম। তাঁর মতে, ভিটামিন ক্যাপসুল দরকার ঠিকই, কিন্তু না হলে চলবে না, এমন নয়। উল্টে রুট-ক্যানাল ট্রিটমেন্ট থেকে চোট-আঘাত-পেইন কিলার না হলেই নয়। গ্রাহামের উপদেশ, ‘‘ক্রেতার কাছে কোনটা গুরুত্বপূর্ণ, তা জেনে পণ্য তৈরি করুন। এমন কোনও পণ্য তৈরি করবেন না, যেটা ক্রেতার কাছে আদৌ গুরুত্বপূর্ণ নয়।’’

প্রধান সমস্যার সমাধান করুন

ক্রেতা বা উপভোক্তার বিশেষ কোনও একটি সমস্যার সমাধান করা অবশ্যই যথেষ্ট নয়। কিন্তু সেটা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, আপনার পণ্য এবং পরিষেবার মাধ্যমে তিনি বিশেষ সমস্যা থেকে মুক্তি পাচ্ছেন। কিন্তু সেই সমস্যা যদি ক্রেতার অন্যতম প্রধান সমস্যাগুলোর মধ্যে না থেকে থাকে, তবে বুঝতে হবে সেটা আদৌ গুরুত্বপূর্ণ নয়। গ্রাহামের দাওয়াই, দেরি হওয়ার আগে সেই ব্যবসার পরিকল্পনা থেকে সরে আসুন।

ক্রেতা যথেষ্টই সচেতন

ক্রেতা বা উপভোক্তা নিজেদের চাহিদা সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন। যদি ক্রেতা মনে করেন কোনও পণ্য বা পরিষেবা তাদের দরকার নেই, তবে সেটা নিয়ে তাদের না বোঝানোই ভাল। গ্রাহামের মতে সেটা সময়ের অপচয়। তাতে যেমন ক্রেতারও যন্ত্রণা, যন্ত্রণা বাড়বে আপনারও।

গ্রাহামের কথায়, মানুষ ভারী বিচিত্র। একেকজনের চাহি‌দা, পছন্দ আলাদা। যদি সকলের চাহিদা এবং পছন্দের কথা মাথায় রেখে পণ্য তৈরি করেন, তবে কাউকেই খুশি করতে পারবেন না। সেটা হয়ে দাঁড়াবে ব্যাড প্রোডাক্ট। অতএব সকলের চাহিদার কথা না ভেবে সমাজের বিশেষ কোনও অংশের চাহিদা মেটানোর কথা ভাবুন।

আলোচনায় উবেরের কথা টেনে এনেছেন গ্রাহাম। বলেছেন, সাধারণ মানুষের চাহিদা থেকে যে ব্যবসার জন্ম হয়, উবের তার প্রমাণ। ক্যাব নিয়ে মানুষজনকে অসুবিধায় পড়তে হত। সেই সমস্যার সমাধান করতে পেরেছিল বলেই উবের ব্যবসা হয়ে উঠেছে সফল।

কোন ব্যবসা করবেন, কোনটাই বা এড়িয়ে যাবেন তা নিয়ে দীর্ঘ পরামর্শ দিলেও পল গ্রাহাম বলেছেন, ‘‘সতর্ক থাকুন। চোখ-কান খোলা রাখুন, এবং ক্রেতার মন বুঝতে চেষ্টা করুন।’’ গ্রাহামের বক্তব্য, তিনি একটা প্যাটার্ন তুলে ধরেছেন মাত্র। কিন্তু স্থান-কাল-পরিবেশ বদলের সঙ্গে সেই প্যাটার্ন বদলে যেতেও পারে। বিখ্যাত এই ব্রিটিশ ভেঞ্চারিস্টের কথায়, ব্যবসা হল পিয়ানোর মতো। দক্ষ হাতে পড়লে সুরে বাজে। নইলে তা হয়ে দাঁড়ায় যন্ত্রণার কারণ।

(লেখক – জিথামিত্র তথাচারী, অনুবাদ – তন্ময় মুখোপাধ্যায়)

Related Stories