১১০ কোটির বিনিয়োগ পেয়ে তরতাজা ফ্রেশমেনু

0

গত বছরের শেষের দিকে ফুডটেক স্টার্টআপে বিনিয়োগের হাল দেখে অনেকেই বেশ শঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা বাতিল করতে হয়েছে অনেকেরই। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে নতুন বছরে নিজেদের জন্য ১১০ কোটির বিনিয়োগ আনল ব্যাঙ্গালোরের ফুডটেক স্টার্টআপ - ফ্রেশমেনু। Zodius Capital এর সাথে বর্তমান বিনিয়োগকারী LightSpeed Ventures এর সহায়তায় নতুন রাউন্ডে বেশ চোখ ধাঁধানো বিনিয়োগ টানল এই ফুডটেক স্টার্টআপ। সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা রেশমি দাগা বলছিলেন যে এই রাউন্ডে সংগৃহীত অর্থের পুরোটাই নতুন টিম তৈরি, গ্রোথ এবং আরও ভালো ব্র্যান্ডিং এর জন্য ব্যবহার করা হবে।

রেশমি দাগা, ফ্রেশমেনুর প্রতিষ্ঠাতা
রেশমি দাগা, ফ্রেশমেনুর প্রতিষ্ঠাতা

তিনি আরও জানিয়েছেন, তাঁদের মেনুতে নতুন ধরণের বিভিন্ন খাবারের সাথে বিভিন্ন ধরণের রান্নার রেসিপি যোগ করার ইচ্ছা রয়েছে । সাথে টেকনোলজির উন্নতিও করা দরকার। কাস্টমাররা যাতে আরও সহজে ফ্রেশমেনুর অ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারে বা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফুডটেক ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে আরও নতুন খবর পেতে পারে সেই দিকেও নজর দেওয়ার চেষ্টা করছে। এছাড়াও দিল্লি, মুম্বইতে অপারেশন আরও মজবুত করার চেষ্টা চলছে, যার জন্য ভালো টিম দরকার। বেঙ্গালুরুতে আপাতত প্রায় সতেরটা কিচেন রয়েছে।

চাকরি দিয়ে জীবন শুরু করা রেশমির কাছে চাকরির থেকে ব্যবসা অনেক বেশি আকর্ষণীয়। প্রথম জীবনে সেলসে কাজ শুরু করলেও আসতে আসতে নিজের একটা স্টার্টআপ তৈরি করে কিউরেটেড আর্ট নিয়ে। কিন্তু পালের হাওয়া ঠিক মতো লাগেনি সেই ব্যবসায়। ফলে ফের চাকরি জীবন শুরু করে, কিন্তু মনের মধ্যে ব্যবসায়ী হওয়ার ইচ্ছেটা ছিলই। সেই ইচ্ছে থেকেই ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা করে ফেলেন ফ্রেশমেনু নামের এই সংস্থা। 

এঁরা আসলে হাব অ্যান্ড স্পোক মডেলে কেন্দ্রীয় কিচেনের মাধ্যমে বিভিন্ন জায়গায় তাজা খাবার সরবরাহের কাজ করে থাকেন। গত বছরের জানুয়ারি মাস থেকে প্রতি মাসেই বিভিন্ন এলাকাতে নিজেদের কাজ শুরু করে দিয়েছেন এঁরা। গত কয়েক মাসে প্রায় ৩০-৪০ শতাংশ উন্নতি লক্ষ্য করেছে এই টিম। আউট সোরসিং করে কাজ করার কথা ভাবলেও সার্ভিস লেভেল এগ্রিমেন্ট ঠিক করা এবং কোয়ালিটি খাবার পরিবেশন করাটা আসলে অন্যের ওপর নির্ভর করে সম্ভব নয় বলেই মনে করেন রেশমি। তাই মেনু ঠিক করা থেকে শুরু করে, কি মশলা দেওয়া হবে বা প্যাকেজিং, ডেলিভারি সবটা নিজেরাই করে ফ্রেশমেনু।

২০১৫ সালের শেষের দিক থেকে ফুডটেক স্টার্টআপের ক্ষেত্রে যে নিম্নমুখী ট্রেন্ড লক্ষ্য করা যাচ্ছিল, ফ্রেশমেনুর এই বিনিয়োগ একটা নতুন আশার সঞ্চার করেছে এই সেক্টরে। আশা করা যাচ্ছে নতুন বছরে বেশ অবাধে বিচরণ করবে এই ধরণের স্টার্টআপ সংস্থা। ফ্রেশমেনু ছাড়াও নতুন বছরে এই সেক্টরেআরও দুটি বড় বিনিয়োগের খবর আছে । বিনিয়োগ করেছে WIMWI এবং B9 Beverages প্রায় ৬ মিলিয়ন ডলার উদ্যোগ পুঁজি সংগ্রহ করেছে Sequoia Capital থেকে Series A রাউন্ডে।

ফুডটেক স্পেসে বিনিয়োগের দিকে যদি আপনি নজর দেন তাহলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন যে ট্রেন্ডটা কোন দিকে। ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে সাতটা ডিলের মাধ্যমে প্রায় ৭৪ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ হয়েছিল, কিন্তু এরপর আসতে আসতে টাকার অঙ্কটা কমতে শুরু করে, সাথে ডিলের সংখ্যাও ক্রমশ কমতে থাকে। নামতে নামতে অগাস্টে পাঁচটা ডিলে বিনিয়োগ হয় ১৯ মিলিয়ন ডলার। পরবর্তীতে ক্রমশই এটা নামতে থাকে আরও নীচের দিকে।

২০১৫ সালের শেষটা ফুডটেক স্টার্টআপের জন্য খুব খারাপ সময় ছিল। একের পর এক বড় বড় সংস্থা বাধ্য হয়েছে নিজেদের ব্যবসা গুটিয়ে নিতে। Dazo এবং Spoonjoy নিজেদের অপারেশন বন্ধ করে দেওয়ার পর ফুডস্পেস নিয়ে একটা বড়সড় প্রশ্ন চিহ্ন তৈরি হয়। সেই কপালের ভাঁজকে আরও গভীর করে TinyOwl এর মতো সংস্থার অপারেশন ছোট করে দেওয়ার ঘটনা। অনেকের চাকরী চলে যাওয়া, পুরো ব্যাপারটার ওপর একটা কালো ছায়া নামিয়ে আনে।

Norwest Venture Partners এর প্রিন্সিপাল সুমের জুনেজা মনে করেন যে ক্রেতার জন্য অসুবিধাজনক এমন কোন সমস্যার সমাধান আপনি যতক্ষণ না করতে পারছেন, ততক্ষণ সে আপনার পণ্য কিনবে না। সাথে তিনি এটাও মনে করেন যে আপনার স্টার্টআপের জন্য আপনি যদি ঠিকঠাক মডেল তৈরি করতে পারেন তবে বিনিয়োগের পথ ঠিক থাকবেই আর তার প্রত্যক্ষ উদাহরণ হল ফ্রেশমেনু।

( লেখা - সিন্ধু কাশ্যপ , অনুবাদ - নভজিত গাঙ্গুলী )