একশকোটির কুলীন কূলে ঢুকতে মরিয়া ShopClues

0

দুয়ারে আলোর উৎসব। দেশজুড়ে তাই ফেস্টিভ মুড। রংয়ের উত্সবে রঙীন হওয়ার জন্য সব্বাই তৈরি। তার জন্য কেনাকাটারও শেষ নেই। নতুন জামা-কাপড় থেকে ইলেকট্রনিক সামগ্রী বা গৃহস্থালীর জিনিসপত্র। কিছুই বাদ যাচ্ছে না। বছরের সবথেকে বেশি কেনকাটা হয় এই সময়েই। দেশ জুড়ে এই শপিং মুডে ব্যবসা এক ধাক্কায় অনেকটা বাড়ানোর এটাই সেরা ‌সময় বিনিয়োগকারীদের কাছে। তাই বাজার ধরতে চলছে ইঁদুরদৌড়। অনলাইন শপিং-এ সংস্থাগুলো মাথা ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো ছাড় দিচ্ছে। এই ব্যবসায় মাত্র চার বছর এলেও তারা যে শিশু হয়ে থাকতে চায় না তা বুঝিয়েছে ‘ShopClues’। এক বিলিয়ন ডলার ব্যবসা করাই তাদের লক্ষ্য।

ভারতীয় বাজার বলছে ক্রেতারা একেবারে তুল্যমূল্য বিচার করেই জিনিস কেনেন। সবথেকে কম দামে কোথায় জিনিস পাওয়া যায় তার খোঁজ চলে নিরন্তর। আর এই মোক্ষম সময়ে নিজেদের ব্যবসাকে ফোর্থ গিয়ারে তুলতে চাইছে ShopClues। এক বিলিয়ন ডলার ব্যবসার টার্গেট। সেটা হলে অনলাইন ব্যবসায় দেশের চতুর্থ সংস্থা হিসাবে তারা উঠে আসবে। নতুন যুদ্ধে জিততে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে প্রায় ১৫০০ কোটি টাকা লেনদেনের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছে এই সংস্থা। উৎসবের মরশুমের ভাল বিক্রির সুবাদে আগামী বছরের শুরুর মধ্যেই এক বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ব্যবসা হবে। এমনটাই বলছেন সংস্থার সিইও ও সহকারী প্রতিষ্ঠাতা সঞ্জয় শেঠি। ই-বের প্রাক্তন গ্লোবাল প্রোডাক্ট হেড সঞ্জয় শেঠি ও ওয়াশিংটন বিশ্বিবদ্যালয়ের প্রাক্তনী এবং ওয়াল স্ট্রিটের ইন্টারনেট বিশেষজ্ঞ সন্দীপ আগরওয়ালের হাত ধরে ২০১১ সালের জুলাইয়ে ক্যালিফোর্নিয়ায় যাত্রা শুরু হয় ShopClues-এর। পরে গুরুগাঁওয়ে তারা অফিস করে।

ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন ইন্ডিয়া এবং স্ন্যাপডিলের বাৎসরিক বিক্রির পরিমাণ এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাজারে এই মুহূর্তে ১০ ভাগ জায়গা নিলেও, আগামী বছরের শুরুর দিকে ১৫ শতাংশ জায়গা তাদের থাকবে বলে মনে করছে ShopClues। এগোনোর জন্য মূলত টায়ার টু ও টায়ার থ্রির অর্থাৎ নন মেট্রো শহরগুলির বাজার ধরাই তাদের লক্ষ্য। গত বছরের থেকে এবার তারা সাত গুণ ব্যবসা বাড়ানোর টার্গেট নিয়েছে। তার জন্য রিটেলে প্রায় ২ লক্ষ পণ্য এনেছে তারা। ৪২ মিলিয়ন উৎসাহী এদের ওয়েবসাইট ঢুঁ মারে।

গৃহস্থালী ও রান্নার সামগ্রী ও দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের বাজার তাদের নজরে রয়েছে। এই সমস্ত সামগ্রী জোগান দিতে ShopClues সবরকম ব্যবস্থা নিয়ে ফেলেছে। দেখা গিয়েছে ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন ইন্ডিয়া এবং স্ন্যাপডিলের মতো সংস্থা এখনও অনেক জায়গায় পৌঁছাতে পারেনি। এই ফাঁকফোঁকরগুলিই ধরতে চায় ShopClues। আর এই বিশাল বাজারের জন্য প্রায় ৩০ হাজার পোস্টাল কোড এলাকা রয়েছে তাদের নজরে। লক্ষ্যপূরণের জন্য ৭০০ কর্মী কাজ করে ‌চলেছেন।

ShopClues বেশ কিছু নতুন ইলেকট্রনিক সামগ্রী বাজারে এনেছে। সেখানে নানা রক‌ম অফার ও অবাক করা ছাড় তারা দিচ্ছে। এর ফলে বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম ব্যবসার ক্ষেত্রে প্রতিদ্বন্দ্বীদের অনেকটাই পিছনে ফেলে দিয়েছে ShopClues। এক্ষেত্রে অন্যান্য সংস্থার থেকে তারা অন্তত কুড়ি শতাংশ বিক্রি বাড়িয়ে নিয়েছে। টেলিভিশন বিক্রিতে তাদের ফল ঈর্ষনীয়। এক কথায় দেশে এই মুহূর্তে অনলাইন বাজারে ShopClues দ্রুত বৃদ্ধির সংস্থা।