দেশের ভবিষ্যৎ কৃষিগবেষক-পনেরো বছরের স্নাতকত্তর সুষমা

0

আসুন আজকে সুষমার সাথে আপনাদের আলাপ করিয়ে দিই। সুষমা বর্মা। লক্ষ্নৌ শহরতলীর বড়গাঁও এলাকা। সেখানেই সুষমার জন্ম। তিনি Babasaheb Bhimrao Ambedkar (Central) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে Microbiology বিষয়ে স্নাতকত্তর ডিগ্রী পেয়েছেন। নিশ্চয়ই ভাবছেন এ আর এমনকি ব্যাপার! বন্ধু একটু সবুর করুন,আসল চমকটা এখনো বাকি। সুষমা যখন মাস্টার্স করছেন তাঁর সহপাঠীরা ওঁর থেকে আট বছরের বড়ো। মাত্র পনেরো বছরেই বিশ্ববিদ্যালয়ের চৌকাঠ পেরিয়ে গেছেন। তিনি দেশের সবচেয়ে কমবয়স্ক স্নাতকত্তর ডিগ্রী প্রাপ্ত ছাত্রী।

আরও তাজ্জব কথা শুনবেন? যে কলেজ থেকে সুষমা স্নাতক হয়েছেন তাঁর বাবা সেখানকার শৌচাগার কর্মী। দুবছর আগেও তেজ বাহাদুর দিনমজুর ছিলেন। তিনি যাতে তাঁর যোগ্য মেয়ের লেখাপড়ার খরচ জোগাড় করতে পারেন,তাই,সুষমার কলেজের Vice-Chancellor ডক্টর আর ভি সবতি তেজকে কলেজে স্থায়ী কাজ দিয়েছেন।

সুষমার মা রত্নগর্ভা। Indiatimes জানাচ্ছে সুষমার বড় দাদা মাত্র চোদ্দ বছরে computer application বিষয়ে স্নাতক হন। সবার ধারণা ওঁদের তিন বছরের ছোট্ট বোন দাদা দিদি সবার রেকর্ড ভেঙ্গে দেবে। তেজের এই কনিষ্ঠ কন্যা অষ্টম শ্রেণীর পাঠ্য কবিতা অনায়াসে গড়গড় করে পড়ে ফেলে। Indian Express কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সুষমা জানিয়েছেন তিনি agricultural microbiology নিয়ে PhD করতে চান। তিনি আরও জানান,জমি পরীক্ষা করে তাঁরা দেখেছেন লক্ষ্নৌ ও তার আশেপাশের জমি ক্রমশ রৌদ্রদগ্ধ ও অনুর্বর হয়ে যাচ্ছে। তাঁর শহরকে সবুজ করে তুলতে তিনি গবেষণা করবেন।

সুষমা শুধু তাঁর মা বাবার নয়,দেশের গর্ব। দেশের সম্পদ। আমরা আশা করি,পড়াশোনা নিয়ে দেখা সুষমার প্রতিটি স্বপ্ন সফল হোক।

Related Stories