স্টার্টআপ বানাতে বুদ্ধি চাই, তার আগে চাই বন্ধু

0

শোলে সিনেমার বিখ্যাত গানটা মনে পড়ে, "ইয়ে দোস্তি হাম নেহি তোরেঙ্গে..."। টেক স্পার্ক এ নিকেতের কথাগুলো এই গানটাই মনে করিয়ে দিল আমায়।

নিকেত দেশাই ফ্লিপকার্টের চিফ স্টাফার। '২৪ হাজার ৫৬৪ দশমিক ৫' এই সংখ্যাটা অডিয়েন্সের দিকে ছুঁড়ে দিয়ে টেক স্পার্কের অন্যতম মূল বক্তা নিকেত তাঁর কথা শুরু করলেন। দিনের হিসেবে এটা ভারতীয়দের গড় আয়ু। মোটামুটি ১০ হাজার দিন তার মধ্যে মানুষ প্রকৃত অর্থে কর্মী থাকেন।

নিকেতের প্রশ্ন ছিল, ধরুন যদি কেউ জানেন যে তিনি আর দশদিন বাঁচবেন, তাহলে কি তিনি নিশ্চিত করে এটা বলতে পারবেন যে জীবনের এই বাকিদিনগুলো কোন মানুষগুলোর সঙ্গে তিনি কাটাতে চাইবেন। নিকেতের মতে সফলতার দুটো মূল চাবিকাঠী আছে। আপনি জীবনে কি ধরনের কাজ করতে চান এবং কোন মানুষগুলোকে নিয়ে আজীবন কাজ করতে চান।

এলিট টিম চাই

গুগুল বানিয়েছিলেন যাঁরা একত্রে তাঁরা ১৭ বছর ধরে কাজ করছেন। যাই ঝড় আসুক না কেন টিম স্পিরিট থাকলে রুখে দাঁড়ানো সহজ হয়। নিকেত বললেন দল আপনাকেই বানাতে হবে। ভাবুন এবং বাছুন কাদের সঙ্গে আপনি ১০০০০ দিন ধরে যে কোন লড়াই লড়তে চান। তাঁরা হয়ত শ্রেষ্ঠ নয়। তাঁরা হয়ত পালটে দিতে পারবেন না তথাকথিত পার্থিব নিয়ম। তবু তাঁরা আপনার কাজের সংজ্ঞা ও মাত্রা বদলাতে সক্ষম।

বিভেদ মাঝে মিলন

নিকেত ২০০৮/২০০৯ নাগাদ সিলিকন ভ্যালিতে তাঁর শুরুয়াতি কোম্পানি 'পাঞ্চড' এর উদাহরণ দিলেন। দলটি ছিল অসাধারণ। তিনজন নির্মাতাই তিনরকম ভাবে দক্ষ,গুণী এবং অনন্য। ২০১৩ তে বিষয়টি গুগুল ওয়ালেট প্রোজেক্টের আওতায় চলে যায়। পাঞ্চড বন্ধ হয়ে যায়। নিকেতের তাই নিয়ে কোনো গ্লানি নেই। কারণ তিনি কিছু বন্ধু পেয়েছেন যাঁরা তাঁর জীবনে চিরকালীন। নিকেত বলেন একটা ভাল টিম তাঁরাই যে দলে প্রতিটি কর্মী একে অপরের যোগ্যতাকে সম্মান দেন ও প্রশংসা করেন।

সাধারণ থেকে অসাধারণ হবার যাত্রা

তিনি তাঁর বক্তব্য এই বলে শেষ করলেন যে উদ্যোগপতি ও নির্মাতারা ভাবুন যে তাঁরা তাঁদের ১০০০০ দিনে কি করবেন। এমন ব্যক্তি চয়ন করুন যে আপনার জন্য দূর্দান্ত প্রমাণিত হবে। সবাই সাধারণের মতোই শুরু করেন। অভিজ্ঞতা একজন মানুষকে অসাধারণ করে তোলে।