পথের শিশুরাও পাবে আধারকার্ড

1

সমীক্ষা বলছে ভারতে আজও প্রায় চল্লিশ লাখ শিশু পথেই দিন কাটায়। মুম্বাই, কলকাতা, চেন্নাই, কানপুর, বেঙ্গালুরু আর হায়দরাবাদের মতো মেট্রো শহরে ৩,১৪,০০০ পথশিশু আছে। দিল্লির পথেই আছে প্রায় লাখ খানেক শিশু। Child Line India বলছে ভারতীয় পথশিশুর ৪০ শতাংশ বাচ্চার বয়স ১১ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। অপুষ্টি, অশিক্ষা, চরম দারিদ্রে জর্জরিত ওদের জীবন। নারী এবং শিশু কল্যাণ মন্ত্রী মানেকা গান্ধী এই বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে বিচার করছেন। বাচ্চাগুলোর সামাজিক পরিচয় এবং ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে তিনি পথবাসী শিশুদের জন্মপরিচয়পত্র এবং আধার কার্ড দেবেন স্থির করেছেন। শ্রীমতি গান্ধী ই-বক্স নামক আরও একটি ব্যবস্থা চালু করবেন। এটি একটা অনলাইন কমপ্লেন বক্স যেখানে শিশুরা তাদের যেকোনো সমস্যার কথা জানাতে পারবে। তাদের প্রতি হওয়া বিভিন্ন অত্যাচারের বিরুদ্ধে অভিযোগ রেজিষ্টার করতে পারবে। তিনি আরও বলেছেন স্কুলে প্রিন্সিপালরা এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবেন। পথচারী শিশুদেরও হাতে ধরে শেখানো হবে অভিযোগ রেজিষ্টার করা। চেন্নাইতে Dayaa Foundation এমন একটি NGO যারা পথবাসী শিশুদের উদ্ধার এবং পুনর্বাসনের কাজ করে। কিছুদিন আগে ওদের অনুষ্ঠিত একটি অনুষ্ঠানে ভাষণ দেন শ্রীমতি গান্ধী। সদ্য প্রস্তাবিত Human Trafficking Bill-এর খসড়া নিয়ে তিনি অনেক সিভিল সোসাইটি ওরগানাইজেশানের সদস্যদের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন। বিষয়টি নিয়ে তামিলনাড়ু সরকারের প্রতিনিধি এবং ২১টি NGO জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন।

(TCI)