কেন বিনিয়োগ শুরুয়াতি ব্যবসার সাফল্যের মাপকাঠি নয়?

0

স্টার্টআপের কথা ভাবলেই প্রথম কোন বিষয়টি আপনার মাথায় আসে: বিনিয়োগ না ক্রেতা?

প্রথম দফার বিনিয়োগ পেলে তবেই কোনও শুরুয়াতি ব্যবসা প্রচারের আলোয় আসে। যেকোনও ফান্ডেড স্টার্টআপের উদ্যোক্তার সঙ্গে কথা বলে দেখুন, তিনি আপনাকে জানাবেন কীভাবে সাফল্যের পথে আরও খানিকটা এগিয়ে যেতে তাঁদের সহায়তা করেছে এই বিনিয়োগ। কিন্তু সাফল্য ওই বিনিয়োগ এনে দেয়নি।

ক্রেতাদের সন্তুষ্ট করতে পারলে তবেই কোনও সংস্থা সফল হতে পারে। আপনার সম্ভাব্য ক্রেতারা মোটেই আপনার সংস্থার পুঁজি নিয়ে চিন্তিত নন। তাঁরা কেবলমাত্র তাঁদের সমস্যা, এবং কীভাবে আপনার প্রোডাক্ট সেই সমস্যার সমাধান করতে পারছে তা নিয়েই ভাবিত। মার্কেটিং গুরু সেথ গডিনের মতে:

  • "কোনও সংস্থার কাজই হল তার গ্রাহকদের পরিষেবা প্রদান করা।
  • কারও ক্ষতি না করাই হল তার কর্তব্য।
  • তার উচিত নিজের কর্মীদের জীবন আরও সমৃদ্ধ করে তোলা।
  • কোথাও একটা বিভিন্ন সংস্থা ধরে নিয়েছে, বিনিয়োগকারীদের সর্বোচ্চ পরিমাণ মুনাফা ফিরিয়ে দেওয়াই মূল বিষয়। যদিও সেরকম হওয়া উচিত নয়। কোনও গণতন্ত্রই তাদের সমাজে কোনও নিগমের অংশগ্রহণের বিনিময়ে এমন আশা করে না।"

বিনিয়োগ যে সমস্যার সমাধান করবে: সংস্থাকে আরও বেশ কিছুদিন চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার রসদ আপনি পেয়ে যাবেন। নতুন ক্রেতা খুঁজে বের করতে এবং ক্রেতাদের খুশি করতে খানিকটা বাড়তি সময় পাওয়া যাবে। ধীরে ধীরে রোজগার বাড়লে লাভের মুখ দেখতে পাবেন আপনি।

মনে রাখবেন, বিনিয়োগের আসল অর্থ কিন্তু টাকা ধার করা এবং তা বিনিয়োগকারীকে ফিরিয়ে দিতে হবে আপনাকে (যা নিয়েছেন তার থেকে বেশ কয়েক গুণ বেশি)। আপনার কোম্পানির টালমাটাল সময় একজন বিনিয়োগকারী বিনিয়োগ করছেন। কাজেই পরিবর্তে তিনি অনেক বেশী আশা করবেন সেটাই স্বাভাবিক। কোনও ব্যাঙ্কই স্টার্ট আপদের লোন দেয় না। ২০-২৫ শতাংশ সুদেও না। 

ফলত, আপনার সংস্থার ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স কমতে থাকলে আপনাকে হয় কোম্পানি বন্ধ করার কথা ভাবতে হবে, অথবা, নতুন করে বিনিয়োগ পেতে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। দ্বিতীয় দফা বিনিয়োগ জোগাড় করতে পারলে আপনি হয়তো প্রথম বিনিয়োগকারীকে টাকা ফিরিয়ে দিতে পারবেন।কিন্তু আরও বেশি ঋণের বোঝা আপনার কাঁধে চেপে বসবে।

অন্যদিকে আপনি যদি প্রথম স্টার্টআপ বন্ধ করতে বাধ্য হন, সেক্ষেত্রে নতুন কোনও ব্যবসার জন্য বিনিয়োগকারী পাওয়া মুশকিল।

তাহলে ব্যবসায় লাভ করতে হলে কী করণীয়? আপনাকে ক্রেতার সংখ্যা বাড়াতে হবে। কারণ তাঁরাই আপনার উপার্জনের একমাত্র নির্ভরযোগ্য উৎস।

তাহলে কখন এবং কীভাবে বিনিয়োগ আপনার কাজে লাগতে পারে?

যখন আপনি বুঝতে পারবেন কীভাবে ক্রেতাদের খুঁজে পাওয়া যায় এবং তাদের খুশি করা যায়। আপনার ব্যবসা বৃদ্ধি করতে পুঁজি প্রয়োজন। বিনিয়োগের সাহায্যে আপনি প্রযুক্তি এবং পরিকাঠামোগত সমস্যার সমাধানে আরও ডেভেলপার নিয়োগ করতে পারেন, বড় সেলস টিম তৈরী করতে পারেন, মার্কেটিংয়ের জন্য আরও বেশি অর্থ ব্যয় করতে পারেন এবং আরও দ্রুত কাস্টমার সাপোর্ট প্রদান করতে পারেন।

অর্থাৎ সব দিক থেকেই আপনার সুবিধা হতে পারে। কিন্তু মনে রাখবেন, যদি আপনি ইতিমধ্যেই ভুল করছেন, ভুল ক্রেতাদের পিছনে দৌড়চ্ছেন, কর্মী নিয়োগে ভুল করছেন, ভুল ভাবে মার্কেটিং করছেন, তাহলে অর্থের জোগান বৃদ্ধি পেলে আপনার ভুলের পরিমাণও বাড়বে। 

বিনিয়োগ আপনাকে সঠিক পথ দেখাতে পারে না; আপনি যে পথে এগোতে চান তাতে সহায়তা করতে পারে মাত্র।

বিনিয়োগের ফলে আপনার ক্রেতা সংখ্যা ১০০ থেকে ১০০০-এ পৌঁছতে পারে, কিন্তু তার জন্য কোন খাতে সেই অর্থ ব্যবহার করবেন সে সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে। যদি আপনি এখনও আপনার প্রাথমিক গ্রাহকদের পাননি কিংবা কীভাবে তাদের সঠিক পরিষেবা প্রদান করবেন তা বুঝে উঠতে পারেননি, তাহলে বিনিয়োগ আপনার সমস্যার সমাধান করতে পারবে না। এক্ষেত্রে আপনার সম্ভবত একজন সঠিক পথপ্রদর্শক এবং একটি দক্ষ টিমের প্রয়োজন।

Y-combinator এর পল গ্রাহমের মতোই বলতে হয়, 

"এমন পরিষেবা প্রদান করুণ যা মানুষের সমস্যার সমাধান করবে, পুঁজি নিজে থেকেই চলে আসবে।"