স্ক্রিনের বাইরেও শাহিদ-রণবীরের লড়াই থামেনি

0

শিরোনাম কেড়ে নিলেন মেবারের রানা রাওয়াল রতন সিং। কেড়ে নিলেন দর্শকদের কুর্ণিশ। আর উপহার দিলেন মুচমুচে একটা বিতর্ক। রানা রাওয়াল রতন সিংহের চরিত্রে শাহিদ কাপুর তাঁর মার্জিত অভিনয় দিয়ে দর্শকদের মন কেড়েছেন। তবুও তৃপ্ত নন শাহিদ। অভিনয়ের আরও অবকাশ খুঁজছিলেন। খিলজির চরিত্রের দিকে তাকিয়ে ছিলেন শাহিদ। ওইরকম লাউড চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ না পাওয়ার আক্ষেপ তাঁর রয়েই গিয়েছে। রণবীরের অভিনয় যারা দেখেছেন তারা বলেছেন পারফেক্ট। রনবীর যে একজন দক্ষ অভিনেতা সেকথা স্বীকার করতে দুবার ভাবেননি শাহিদও। তবুও খিলজির চরিত্রকে অন্যভাবে ফোটাতে পারতেন শাহিদ। সম্প্রতি এমনটাই দাবি করেছেন। শাহিদ যেন বলতে চাইছেন রণবীরের তুলনায় খিলজির চরিত্রে বেশী ভালো অভিনয় করতে পারতেন। যার বীর দর্পের কাছে ম্লান হয়ে গেছে সম্রাট আলাউদ্দিন খিলজির দাপট সেই শাহিদ কাপুরের মন ভালো নেই। মনের কোণায় জমে আছে অভিমান। অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে বনসালীর এপিক ড্রামা "পদ্মাবত" মুক্তি পেয়েছে ঠিকই কিন্তু কাঁচি চলেছে তার অভিনীত অংশে। তবুও বক্স অফিসের নিরিখে বেশ ভালোই ব্যবসা করছে পদ্মাবত। করণী সেনাও এখন ঠাণ্ডা। মেনে নিতে বাধ্য হয়েছে পদ্মাবত ভালো সিনেমা। তবুও কোথায় যেন তাল কাটছে শাহিদের কথায়! পদ্মাবতের সেটে দুজনের মানে তাঁর আর রনবীরের মিলমিশ কেমন ছিল, এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে শাহিদ বলেন, শট দেওয়া হয়ে গেলে তিনি নাকি গান শুনতেন।

তুখোড় মানের অভিনেতা শাহিদ কাপুর। সে কথা ইন্ডাস্ট্রির প্রত্যেকটি প্রাণী এক বাক্যে স্বীকার করেন। যব উই মেটের শান্ত শীলিত ব্যবসায়ী আদিত্যই হোন কিংবা রাজকুমারের গুণ্ডা সুপারি কিলার মাওয়ালি, উড়তা পাঞ্জাবের রক স্টারের পাগলামি হোক কিংবা শেক্সপিয়ারের থ্রিলিং ট্রাজেডি হ্যামলেট থেকে অনুপ্রাণিত হায়দরের to be or not to be র দ্বন্দ্ব। সর্বত্র অনবদ্য। বিশাল ভরদ্বাজ থেকে বনসালী একবাক্যে স্বীকার করেছেন সেকথা। দর্শকও মুগ্ধ। তবু মন ভালো নেই।

প্রায় দুই দশক হবে, ১৯৯৯ সাল। অগাস্টে রিলিজ করেছিল সুভাষ ঘাইয়ের মিউজিক্যাল ড্রামা "তাল "। আপনারা দেখেছেন নিশ্চয়ই। বিশ্বের সেরা সুন্দরী ঐশ্বর্য রাই তার লাস্য দিয়ে এ আর রহমানের অপূর্ব সুরের যাদুকে অলংকৃত করেছিলেন। কিন্তু দর্শক টানতে পারেনি ছবিটি। বক্স অফিসে তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি। কিন্তু সেই তালের একটি গানের দৃশ্যে শাহিদকে দেখে থাকবেন হয়ত। কোনও রোল নয়। কোনও বিশেষ উল্লেখ নয়। মানসী মানে গল্পের নায়িকা গাইছেন "টুটে দিলকি পীড় সহি না যায়ে...", আর তাঁর মাথায় ওড়না টেনে দিয়ে যাচ্ছে সহযোগী শিল্পীরা। নাচের এক্সট্রা। মিষ্টি মুখের ওই বালকটিই রানি পদ্মাবতীর রানা রাওয়াল রতন সিং! চমকে গেলেন? আজ্ঞে হ্যাঁ। এভাবেই লড়াই করে সিলভার স্ক্রিনে জায়গা করে নিয়েছেন এই অসামান্য অভিনেতা।

একটা সময় গানের অ্যালবামে নাচের সিকোয়েন্সে নাচ করেছেন শুধু। একটু একটু করে নিজের পায়ের তলার জমিটা শক্ত করে নিয়েছেন। শুরুর দিনগুলোতে তাঁকে দেখা যেত রোমান্টিক চরিত্রে। হিট-ফ্লপ মিলিয়ে খুব সহজ ছিলনা শাহিদের বলিউডি সফর। তারপর এতগুলো বছরে তিনিই যেন ফাটা পোস্টার নিকলা হিরো। আজ শাহিদ কাপুর বলিউডের প্রথম সারিতে দাঁড়িয়ে। বহু সফল সিনেমার নায়ক। অপর নাম শাহিদ খাট্টার। পঙ্কজ কাপুরের সুপুত্র। পঙ্কজ কাপুর। মঞ্চ থেকে ছোটপর্দা সিনেমা সর্বত্রই তিনি অসামান্য অভিনেতা। বারবার তাঁর অভিনয় সমালোচকদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। শাহিদের মা নীলিমা আজিম। টেলিভিশন এবং রুপোলী পর্দার ভীষণ পরিচিত মুখ। তাই বলাই যায় অভিনয় শাহিদের রক্তে।

দর্শকদের সমালোচনা, ভালোবাসা, অন্যান্য অনেক অ্যাওয়ার্ড ছাড়াও তিনটে ফিল্ম-ফেয়ার সবই আছে ওঁর ঝুলিতে। রিল লাইফে হিট জুটি বেঁধেছিলেন করিনা কাপুরের সঙ্গে। চুটিয়ে প্রেমও করেছেন দুজনে রিয়েল লাইফে। তারপর একসময় ফ্যানেদের কষ্ট দিয়ে, সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় করে ভেঙে যায় সেই সম্পর্ক। শাহিদ অভিযোগ করেন করিনাই তাঁকে কষ্ট দিয়েছেন। বলিউডের গ্ল্যামার গার্ল অবশ্য এখন নবাবের বেগম। সেইফ আলি খানের দ্বিতীয় পত্নী। তৈমুরের মা। শাহিদের জীবনও থেমে থাকেনি। আজ তিনিও স্ত্রী মীরা আর মেয়ে মিশাকে নিয়ে বেজায় খুশি।

খানদের রাজ্যে এই পাঁচ ফুট ন ইঞ্চির অভিনেতা নিজের মত করে নিজের জায়গাটা করেই নিয়েছেন। ২০০৯ এ রিলিজ করেছিল শাহিদ আর প্রিয়াঙ্কা চোপরার হিট সিনেমা কামিনে। ডবল রোল করেন শাহিদ। তারও এক বছর বাদে, ব্যান্ড বাজা বাড়াত সিনেমায় অনুষ্কার বিপরীতে অভিনয় করে বলিউডে পা রাখেন রনবীর। পরিচালক করণ জোহরের জনপ্রিয় টক শো কফি উইথ করণ এর একটি এপিসোডে রনবীর বলেছিলেন কামিনেতে শাহিদের তুলনায় ভালো করতে পারতেন তিনি! এবার শাহিদের পালা। জবাবটা দিয়েই দিলেন। তবে বাকিটা সময় বলবে। শুক্রবার আর দর্শক স্থির করবে কার দৌড় কত দূর।