শুরুয়াতি ব্যবসার সহজ পাঠ, ছয়ে ছক্কা!

2

প্রত্যেক উদ্যোগপতিই চান তাঁর বিজনেস প্ল্যানটা যেন সবদিকে দিয়ে ‘ঠিকঠাক ও নিখুঁত’ হয়। এমন চাওয়াটাই স্বাভাবিক। প্রত্যেক VC Fund Manager প্রতি মাসে এ ধরনের কমপক্ষে শ’খানেক ‘ঠিকঠাক ও নিখুঁত’ বিজনেস প্ল্যান খতিয়ে দেখেন। এরমধ্যে ৯৯টিই Shredder machine-এর খাদ্য হয়! সহজ কথায় বাতিল হয়।

তাহলে ফান্ড বা তহবিল মিলবে কীভাবে? বিজনেস প্ল্যানে এমন কী থাকবে যা দেখে উৎসাহিত বোধ করবেন ফান্ড ম্যানেজার এবং তিনি সেই ফাইল ইনভেস্টমেন্ট কমিটির কাছে ছাড়পত্রর জন্য পাঠাবেন?

এব্যাপারে আমার হাতেকলমে কিছু অভিজ্ঞতা রয়েছে। ২০১১-১৩ সাল নাগাদ Lemongrass Advisors (একটি রিয়েল এস্টেট অ্যাডভাইজরি ফার্ম)-এর জন্য প্রায় ৩০ লক্ষ মার্কিন ডলারের growth capital তোলার চেষ্টা করছিলাম। এ ব্যাপারে আমি সাহায্য পেয়েছিলাম একজন Investment Banker-এর। আমার সেই মূলধন সংগ্রহ অভিযানে সুযোগ হয়েছিল বেশ কয়েকটি VC Funds-এর মুখোমুখি হওয়ার। সেই অভিজ্ঞতা নিচে ছ’টি পয়েন্টে তুলে ধরলাম। সেই সময় বিষয়টা নিয়ে নড়াচড়া করতে গিয়েও বিভিন্ন সূত্রে কিছু জেনেছিলাম। তাও তুলে ধরলাম।

আপনার বিজনেস কী কোনও সমস্যার সমাধান বাতলে দিতে পারবে? এই বিজনেস কি কোনও ফাঁক পূরণ করতে পারবে বা নতুন কিছুর সূচনা করবে?

গড়পড়তা ব্যবসা পছন্দ করেন না Venture Capitalist বা VC-রা। একই ধরনের পণ্য বা পরিষেবাও পছন্দ করেন না তারা। তাই প্রথমেই দেখে নিতে হবে আপনি যে ব্যবসার কথা ভেবেছেন বাজারে সেই একই ধরনের পণ্য বা পরিষেবা রয়েছে কিনা। যদি থাকে, তাহলে আপনার বিজনেস কি সেই পণ্য বা পরিষেবাকে বিঘ্নিত করছে? আপনার পণ্য বা পরিষেবা কি কনজিউমারদের সুবিধার দিকে নজর দিতে পারছে? কিংবা এমন কোনও জিনিস বা পরিষেবা কি দিতে পারছে যা বাজারে নেই?

একটা উদাহরণ দেওয়া যাক। ধরা যাক একজন উদ্যোগপতি চাইছেন ভারতীয় খাদ্যসম্ভার নিয়ে একাধিক রেস্তোরাঁ খুলবেন। ভালো কথা। আর একজন উদ্যোগপতি চান শুধুমাত্র breakfast ও dinner –এর জন্য একাধিক রেস্তোরাঁ খুলতে। এমন breakfast ও dinner যা হবে স্পেশ্যাল। যাঁর লক্ষ্য হল কর্মরত দম্পতি, ভিনরাজ্যে কর্মরত তরুণ, স্বাস্থ্য সচেতন পরিবার, ট্র্যাভেলিং এক্সিকিউটিভ বা সকালে অতি ব্যস্ত কোনও পরিবারকে সার্ভ করা। অনলাইন বা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে অর্ডার দেওয়ার সহজ ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। এবং বাড়ি বা কর্মস্থল, ইচ্ছেমতো যে কোনও জায়গায় সেই খাবার পৌঁছে দেওয়া হবে। সেইসঙ্গে থাকছে ডায়েট মেনুরও ব্যবস্থা। আবার সেই একই কিচেনকে দুপুরে কর্পোরেট ক্যাটারিং বা ব্যাংকোয়েট ক্যাটারিংয়ের কাজে লাগান যাবে।

এখন আপনি যদি VC হন, আপনিই বলুন ওই দু’জন উদ্যোগপতির মধ্যে কার সঙ্গে দ্বিতীয়বার বৈঠক করতে চাইবেন?

আপনার ব্যবসা কি Scalable? বাজারের চাহিদা কি পূরণ করতে পারবে? ডিস্ট্রিবিউশনের জন্য অতিরিক্ত খরচ হবে না তো?

ঠিক এই কারণেই দেখা যায় প্রাথমিক পর্যায়ে একটা বড় পরিমাণ টাকা VC-এর তহবিল থেকে যাচ্ছে ই কমার্স বা অ্যাপ্লিকেশন নির্ভর প্রযুক্তি ব্যবসায়। কারণ অত্যন্ত কম খরচে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারে ওয়েব।

তাই যে সব উদ্যোগপতি ই কমার্স বা প্রযুক্তি ব্যবসার কথা ভাবছেন না, তারা কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়ছেন। ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্টরা সেইসব ব্যবসাকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছেন যেখানে ই কমার্স বা প্রযুক্তি নির্ভরতা বেশি। তবে আইডিয়া যদি অসাধারণ হয় সেক্ষেত্রে কোনও কিছুই বাধা নয়। তবে ব্যবসা যাই হোক, এই পরামর্শই দেব যে তার সঙ্গে যেন ইন্টারনেট ও টেকনোলজির যেন যোগসূত্র থাকে। যতটা সম্ভব এর ব্যবহার থাকা উচিত। আসলে এটাই সময়ের দাবি।

বিজনেস প্ল্যান কি গ্রাহকদের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠতে পারবে? আপনার চলতি ব্যবসা থেকে বর্তমানে মুনাফা হয়?

Lemongrass Advisors—এর হয়ে আমি যখন বাজার থেকে ৩০ লক্ষ ডলার তোলার উদ্যোগ নিয়েছিলাম, সেই বছর আমাদের বিলিং ছিল প্রায় ১০ লক্ষ ডলার। তা সত্ত্বেও VC জানায়, সাধারণত তারা ৩০ থেকে ১০০ লক্ষ ডলারের ব্যবসাকেই সহায়তা করে থাকেন। তাই তাদের কাছে এই ব্যবসা প্রাথমিক পর্যায়ের বেশি কিছু নয়।

তাই আপনার বিজনেস প্ল্যান যদি শুধুই একটা আইডিয়া হয়, যেখানে আপাতত কোনও লাভ নেই, সেক্ষেত্রে আপনার একজন অ্যাঞ্জেল ইনভেস্টর প্রয়োজন।

আপনি একজন উদ্যোগপতি হিসাবে এবং VC, দুজনের ক্ষেত্রেই সমান জরুরি বিজনেস প্ল্যানটা বাস্তবোচিত কিনা। আপনার ব্যবসার বাজারে বা গ্রাহকদের মধ্যে গ্রহণযোগ্যতার কিছু প্রমাণ থাকতেই হবে। রেভিনিউ অর্জন হলে খুবই ভালো কথা। সবচেয়ে বড় কথা রানিং বিজনেস হলেই ভালো।

আপনার কি একটা শক্তিশালী, সমমনোভাবাপন্ন Founder Team /Management Team আছে? নাকি আপনি একাই ব্যবসা চালান?

একজন ব্যক্তি মিলে ব্যবসা চালান এমন সংস্থায় টাকা ঢালা নিরাপদ বলে মনে করে না ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্ট। এর যু্ক্তিসঙ্গত কারণও রয়েছে। কম সময়ের মধ্যে লগ্নিকৃত অর্থের বহুবিধ ব্যবহার করতে হয়। বৃদ্ধি সূচক তাই ওঠানামা করতেই থাকে। ব্যবসার এই গতি কোনও একজনের ওপর নির্ভরশীল সংস্থার পক্ষে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়, উচিতও নয়। সে তিনি যতই দক্ষ হোন না কেন। তাই প্রথমেই একটা যোগ্য ও দক্ষ দল গড়ে তুলুন। প্রত্যেকের যেন বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ দক্ষতা থাকে। এমন একটা টিম আপনার পাশে থাকলে আপনি সহজেই VC-র দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারবেন। তারাও অর্থ ঢালতে পিছপা হবে না।

VC কীভাবে তার টাকা ফেরত পাবেন? আপনার কি পূর্ব নির্ধারিত exit strategy আছে vc-র জন্য?

মুনাফা করার জন্যই VC টাকা ঢালেন। খুব সহজ কারণেই তাঁরা জানতে চান, কবে এবং কীভাবে আপনার ব্যবসা থেকে লাভ আসবে। এমনকী কোনও প্রোপাজালকে তাঁরা নেগেটিভ মার্ক করতে পারেন যদি সেই ব্যবসা থেকে exit বা বেরিয়ে যাওয়ার পথ খোলা না থাকে সংশ্লিষ্ট ফান্ড সিরিজের সময়কালের মধ্যে।

আপনি কোন অঞ্চলে ব্যবসা করতে চাইছেন? আপনার লিডারশিপ টিমের সদস্যরা কোথায় থাকেন? আপনার সংস্থার Head Quarter কোথায়?

বিজনেস প্ল্যানই আসল, ব্যবসার এলাকা বা অঞ্চল সম্পর্কে আপাতদৃষ্টিতে VC ততটা খুঁতখুঁতে নন। আমি কিন্তু ব্যাপারটা তা মনে করি না। ভারতে বর্তমানে শুরুয়াতি ব্যবসার ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রেই সেইসব সংস্থাকে ফান্ড করা হয়েছে যাদের কর্মক্ষেত্র বেঙ্গালুরু বা গুরগাঁওয়ে। এর বাইরে কিছুটা মুম্বইকে। কারণ Venture Capitalists-রা এইসব এলাকাতেই মূলত তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে থাকেন। এর ফলে লিডারশিপ টিমের সঙ্গে তারা নিয়মিত দেখাসাক্ষাৎ করতে পারেন, বা বলা ভালো ব্যবসা সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে পারেন। ভারতে আপাতত বেঙ্গালুরু ও গুরগাঁও, এই দুটি জায়গা VC দের সবচেয়ে পছন্দের।

ফলে, আপনার ব্যবসা ভৌগোলিক এলাকা কোথায় সেটাও ভাবা দরকার। ওইসব এলাকার বাইরের নয়তো? ধরা যাক কলকাতা। আমি যেসব VC-র মুখোমুখি হয়েছিলাম, তারা বলেছিল, অভিজিৎ (এই আর্টিকেলের লেখক) আপনি দশগুণ বেশি ফান্ড পেতে পারতেন যদি আপনি Lemongrass Advisors বেঙ্গালুরু বা গুরগাঁওয়ে প্রতিষ্ঠা করতেন। এমনকী চেন্নাই হলেও চলত। কলকাতা তাদের কাছে একটা বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মতো।

(এই প্রবন্ধের লেখক অভিজিৎ দাস ফাউন্ডার ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর Lemongrass Advisors Private Limited-এর। ২০১৩ সালে acquisition-এর মাধ্যমে Cushman and Wakefield India-র সঙ্গে মিশে যায় Lemongrass Advisors। লেখক বর্তমানে Cushman and Wakefield-এর Office Director-East India).

Related Stories