টোটো কোম্পানি খুললে ভাগ্য খুলবে!

0

দিওয়ালির আনন্দে আরও মশলা ঢালতে এখন সম্পন্ন ভারতীয়রা ছোটেন ব্যাঙ্কক পাটায়া। কিংবা সাহারায় শিহরণ নিতে মাসাইমারির ধূধূ প্রান্তর, কিনিয়ার জঙ্গল কিংবা গ্লাডিয়াটরদের কলোসিয়াম, কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পের দেশ পোল্যান্ড, বার্লিনের ভাঙা দেওয়াল, পরিত্যক্ত বন্দরশহর অস্টিকা কিংবা শিল্পের স্পর্ধা জাহির করা আইফেল টাওয়ার। নানান ডেস্টিনেশন। দেওয়ালির সময় ঘরে নয়, ঘরের বাইরেই সব মজা। ঘরের বাইরে বললেও ভুল হবে, বলা ভাল দেশের বাইরে কাটানোর জন্যে কয়েকটা দিন ক্যালেন্ডারে মার্ক করা থাকে বছরের শুরু থেকেই।

অন্তত সমীক্ষা এটাই বলছে। এবারের দিওয়ালির সময় বাস্তবিক তেমনটাই হয়েছে। অনেকেই ট্রাডিশন ভেঙে দিওয়ালির সময় পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশ। আর এখানেই লুকিয়ে রয়েছে তরুণ উদ্যোগপতিদের জন্য সুবর্ণ সুযোগ। ভারতীয়দের বিদেশ ভ্রমণকে উপলক্ষ করে ট্রাভেল-ট্যুরিজম স্টার্টআপ গড়ে তোলা। মা লক্ষ্মীর কৃপা পেতে চাইলে পরের বারের জন্য এখন থেকেই শুরু করে দিতে পারেন।

অনলাইন অ্যাকোমোডেশন বুকিং ওয়েবসাইট হিসাবে নামডাক রয়েছে Hotels.com-এর। সেই ওয়েবসাইট বলছে, "ভারতীয়রা তাঁদের গণ্ডী বাড়িয়ে ফেলছেন। তাঁদের মনোভাবে একটা পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দিওয়ালির সময় (যা এতদিন ঘরোয়া উৎসব বলেই পরিচিত ছিল) তাঁরা বেড়িয়ে পড়ছেন বিদেশে।" এই সংস্থার দেওয়া তথ্য বলছে, বিদেশ ভ্রমণের ক্ষেত্রে ভারতীয়দের সেরা পছন্দ ইউরোপ। আর দেশীয় ভ্রমণ মানচিত্রে প্রথম পছন্দ গোয়া। দিওয়ালি আসলে ভারতীয়দের জন্য আরও কিছু। যার মাধ্যমে উঁকি দেয় বছর শেষের একাধিক উৎসব। বড়দিন পালন থেকে ইয়ার এন্ডিং। যেন উৎসব বোঝাই একটা ঝাঁপির দরজা খুলে যায়। বছর শেষের সেই সময়টাও অনেকে বিদেশে পাড়ি জমাতে পছন্দ করেন। আর সেই তালিকাটা ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে। একটা নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে বছরভর তারা অর্থ সঞ্চয় করেন। আর সেই টাকা দিয়েই পূরণ করে নেন বিদেশ ভ্রমণের সুখ। এক্ষেত্রে ট্র্যাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম সংস্থাগুলিও 'আচ্ছে দিন'-এর স্বাদ পান।

উত্তর থেকে দক্ষিণ, পূর্ব থেকে পশ্চিম। ভারতে দেশীয় উৎসবের শেষ নেই।যা একান্তভাবেই ভারতীয় সংস্কৃতির অংশ। যার মা্ধ্যমে বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যেরই ছবি ফুটে ওঠে। বছরের বিভিন্ন সময় সেইসব উৎসবের সাক্ষী হতে ভারতে আসেন লক্ষ-লক্ষ বিদেশি পর্যটক। প্রাচীন ভারতীয় সভ্যতার বর্তমান রূপ ঘুরে-ঘুরে দেখতে পছন্দ করেন তারা। বিদেশি এই পর্যটকদের দিকে তাকিয়ে থাকে ভারতীয় পর্যটন শিল্পও। বিদেশিরা সাধারণত পছন্দ করেন ভালো মানের খাওয়া ও থাকার জায়গা। আর ভালো ব্যবহার। এজন্য উপযুক্ত খরচ করতে তারা এতটুকুও দ্বিধা করেন না। সেই আতিথেয়তা যে সব ভ্রমণ সংস্থা দিতে পারেন, পরবর্তী সময়ে লাভবান হয় তারাই। দেখা গিয়েছে বিদেশি পর্যটকরা দেশে ফিরে এইসব সংস্থার সুনাম করেন। যার ফলে সেইসব দেশ থেকে আসা পর্যটকরা ভারতে এসে ভাবমূর্তি ভালো এমন সংস্থার সঙ্গেই যোগাযোগ করেন।

(পিটিআই)