মোদির স্বপ্নের স্টার্টআপ ইন্ডিয়া‍ অ্যাকশন প্ল্যান ঘোষিত হবে আজ

0
ভারতসরকারের স্টার্টআপ ইন্ডিয়া মুভমেন্টের অংশীদার হতে পেরে ইওরস্টোরি গর্বিত। নয়াদিল্লিতে স্টার্টআপ অ্যাকশন প্ল্যান ঘোষিত হবে ১৬ জানুয়ারি।

১৬ জানুয়ারি। ভারতের শুরুয়াতি ব্যবসার এক স্মরণীয় দিন হতে চলেছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির স্বপ্নের স্টার্টআপ ইন্ডিয়া মুভমেন্টের অ্যকশন প্ল্যানের ঘোষণা হবে। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী এবং বাণিজ্যমন্ত্রী অরুণ জেটলি বিজ্ঞান ভবনে সকাল সাড়ে নটায় একটি অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে শুরু করবেন এই ঐতিহাসিক ইভেন্ট। ইভেন্টের সমাপ্তিতে গোটা দেশের সমস্ত উদ্যোগী যুবক যুবতীদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উপস্থিত থাকবে ভারতের তুখোড় সিইওরা। উপস্থিত থাকবেন ভবিষ্যত ভারতের কারিগর সমস্ত উদ্যোগপতি। জানা গিয়েছে দেড় হাজারেরও বেশি উদ্যোগপতি এই অনুষ্ঠানেই উপস্থিত থাকছেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণেই ঘোষণা করবেন দেশের স্টার্টআপ অ্যাকশন প্ল্যান।

বিজ্ঞানভবনের অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। আন্তর্জাতিক শুরুয়াতি ব্যবসা এবং উদ্যোগের বিভিন্ন দিক নিয়ে দিনভর চলবে আলোচনা।

এই আলোচনাচক্রে যে বিষয়গুলির উত্তর খোঁজা হবে সেগুলির মধ্যে থাকছে 

  1. উদ্যোগ এবং উদ্ভাবনে ভারতীয় স্টার্টআপদের অগ্রগতির জন্যে ঠিক কী প্রয়োজন
  2. ভারতীয় নারীত্বের উদ্‌যাপন, মহিলা উদ্যোগপতিদের উদ্ভাবনী কাহিনি
  3. কীভাবে ডিজিটাইজেশন ভারতের ভবিষ্যতকে পরিবর্তন করতে পারে
  4. ভারতীয় স্বাস্থ্য ক্ষেত্রকে কীভাবে চাঙ্গা করা যায়
  5. আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণ নাগালের ভিতর কিনা

থাকছে গুরুত্বপূর্ণ প্যানেল ডিসকাশন। বিষয় “Show Me the Money: How do we Capitalize Entrepreneurship?” এই প্যানেল ডিসকাশনের সভাপতিত্ব করবেন কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রেকর প্রতিমন্ত্রী শ্রী জয়ন্ত সিনহা।  “Face-to-face with Policy makers” শীর্ষক প্রশ্নোত্তর পর্বেরও আয়োজন করা হয়েথে। নীতি নির্ণায়কেরা শুরুয়াতি ব্যবসায়ীদের মুখোমুখি হবেন। কেন্দ্রীয় সরাকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের সচিবরা উত্তর দেবেন সেসব প্রশ্নের। দেশের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে সরকারি উদ্যোগে কীভাবে আরও শক্তিশালী এবং কার্যকর করা যায় সেবিষয়ে আলোচনার অবকাশ থাকছে।

রাজস্ব, মানবসম্পদ উন্নয়ন, কর্পোরেট সংক্রান্ত মন্ত্রক, আর্থিক পরিষেবা, অর্থনীতি বিষয়ক দফতর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রক, বায়োটেকনোলজি, বৈদ্যুতিন এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগ বিভাগ এবং স্কিল ডেভেলপমেন্ট বা দক্ষতা পরিবর্ধন বিভাগের সচিবরা এই প্যানেলে থাকছেন। এছাড়াও থাকছেন সিক্যুউরিটিস এক্সচেঞ্জ বোর্ড অব ইন্ডিয়া বা সেবির এবং স্মল ইন্ডাস্ট্রিস ডেভেলপমেন্ট বা সিডবির উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দল।

এই অনুষ্ঠানে থাকছেন আন্তর্জাতিক উদ্যোগ দুনিয়ার নেতা নেত্রীরাও। তাঁদের সঙ্গে মুখোমুখি কথা বলার সুযোগ থাকছে। আসছেন সফ্ট ব্যাঙ্কের প্রতিষ্ঠাতা সিইও মাসাইওসি সন, উবের এর প্রতিষ্ঠাতা ত্রাভিস কালানিক, এবং উই ওয়ার্ক এর প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডাম নুয়েমান। সিলিকন ভ্যালি থেকে আসছে ৪০ টি সেরা স্টার্টআপের সিইও প্রতিষ্ঠাতা এবং ভেঞ্চার ক্যাপিটল সংস্থা এবং অ্যাঞ্জেল ইনভেস্টর সংস্থাগুলির কর্ণধারদের একটি দল। তাঁরা বিশেষ অতিথি হিসেবে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন। এবং প্রশ্নোত্তর পর্বে যোগ দেবেন।

এই অনুষ্ঠানে একটি গুগলেরও একটি অভিনব সেশন থাকছে। “Launchpad Accelerator” নামের এই সেশনে শুরুয়াতি ব্যবসায়ীরা সরাসরি তাঁদের সম্ভাব্য বিনিয়োগকারীদের কাছে ব্যবসার মৌলিক এবং উদ্ভাবনী দিকগুলো তুলে ধরার সুযোগ পাবেন। বিনিয়োগ টানার এক সুবর্ণ সুযোগ পাবে স্টার্টআপ সংস্থাগুলি। সফ্টব্যাঙ্কের প্রেসিডেন্ট এবং চিফ অপারেটিং অফিসার নিকেশ অরোরা স্টার্টআপ ফান্ডিং নিয়ে একটি আলপচারিতায় অংশ নেবেন। দেশের উল্লেখযোগ্য স্টার্টআপদের কাজের ভার্চুয়াল প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হচ্ছে।

ক্ষমতায় আসার পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মেক ইন ইন্ডিয়ার পাশাপাশি তরুণ তুর্কিদের ব্যবসায় উজ্জীবিত করার বিষয়টিতে জোর দিতে বলেছিলেন স্টার্টআপ ইন্ডিয়াি, স্ট্যান্ড আপ ইন্ডিয়া... । কিন্তু তার পন্থা কী হবে? কেই বা দেবে দিকনির্দেশ? সেইসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাচ্ছিল না। এরপর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই তাঁর শেষ মন কি বাত অনুষ্ঠানে বিষয়টি প্রথম খোলসা করেন। জানান লালকেল্লার মঞ্চ থেকে যে স্টার্টআপ ইন্ডিয়ার স্বপ্ন তিনি দেখিয়েছিলেন যুবসমাজকে তার রূপরেখা প্রকাশ হবে  ১৬ জানুয়ারি। এই উদ্যোগকে সার্বিক স্তরে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সমস্ত রাজ্য সরকারকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

মন কি বাত অনুষ্ঠানে মোদী প্রশ্ন করেন, ভারত কি স্টার্টআপদের রাজধানী হয়ে উঠতে পারে ? উৎপাদন হোক, পরিষেবা হোক বা কৃষি, দেশের উৎসাহী উদ্ভাবনী শক্তিসম্পন্ন যুবকেরা কি স্টার্টআপ হিসেবে যথেষ্ট সুযোগ পাচ্ছেন? কারণ সৃজনশীলতা ছাড়া বিশ্ব এগোতে পারে না। সেখানেই মোদী জানান, ১৬ জানুয়ারি কর্মসূচির ইতিবৃত্ত প্রকাশ্যে আসবে। দেশের সমস্ত আইআইটি, আইআইএম, কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং এনআইটিকে অনুষ্ঠান চলাকালে লাইভে যুক্ত করা হবে। পাশাপাশি যুক্ত হবেন দেশের সাড়ে তিনশটি জেলার যুবসম্প্রদায়কেও।

কেন্দ্রীয় শিল্প পরিকল্পনা এবং প্রসার দফতর এই অনুষ্ঠানের প্রধান উদ্যোক্তা। সহযোগিতা করছে ইনভেস্ট ইন্ডিয়া এবং স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমের অন্যতম প্রধান সহযোগী সংস্থাগুলি, যেমন আই স্পিরিট, ইওর স্টোরি, ন্যাসকম, শি-দ্য-পিপল ডট টিভি এবং কায়রোস সোসাইটি। পাশাপাশি রয়েছে বণিক সভা ফিকি এবং সিআইআই-এর যুবশক্তি।


Related Stories