সপ্তডিঙায় সওয়ার দেব‘দূত’, গন্তব্য বহুদূর

0

ডিজিটাল অথবা অনলাইন মার্কেটিংয়ের দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, এগুলি অনেকটা পরজীবীর মতো। একটার বৃদ্ধি আরেকটার ওপর নির্ভরশীল। এই ক্ষেত্রে আজকাল রাঘব বোয়ালদের পাশাপাশি কিছু স্টার্টআপও দেখা যাচ্ছে। এই অচিন পাখিরা নিজেরদের ব্র্যান্ড তৈরি করে অনলাইন বিশ্বে ছাপ রাখার প্রতিশ্রুতি দেখায়।

টিম 7Boats
টিম 7Boats

এবার 7Boats এ আসা যাক। কী এই 7Boats? 7Boats হল, স্ট্র্যাটেজিক ইন্টারনেট মার্কেটিং কোম্পানি যাদের মূলত ওয়েব কনসালটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং-এ বুৎপত্তি রয়েছে। 7Boats হল ISO 9001:2008 সংস্থা,যাদের সারা বিশ্বে গ্রাহক রয়েছে।

লোকসংস্কৃতি এবং হিন্দু পুরানের সপ্তডিঙা থেকে 7Boats এর নামকরণ। সপ্তডিঙা আদতে রূপক অর্থে ব্যবহার হয়, মানে বলতে বোঝায়, অজানার উদ্দেশে পাড়ি। সংখ্যা সাতও পুরনো গল্প থেকে নেওয়া এবং রংধনুর সাত রংকেও বোঝায়। যখন সপ্তডিঙাকে ভাসাই, আমাদের একটা স্বতন্ত্র দৃষ্টিভঙ্গি ছিল। হাজারো ইন্টারনেট মার্কেটিং সংস্থাগুলির ভিড়ে আলাদা করে নিজেদের পরিচয় তৈরি করতে চেয়েছিলাম। তাই আর দশটা সংস্থার পথে না হেঁটে আমাদের কোম্পানির নামের ক্ষেত্রে তথাকথিত ইনফো, টেক অথবা সলিউশন এই শব্দগুলি এড়িয়ে যাই। 7Boats শব্দটির মধ্যে এমন একটা ব্যাপার আছে, শুনলেই মনে হবে এক্কেবারে হটকে, বলেন দেবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়, 7Boats এর প্রতিষ্ঠাতা।

আগেই বলেছি এই ক্ষেত্রে হাজারো স্টার্টআপ আছে। তারপরও 7Boats এর কিছু বিশেষত্ব রয়েছে যার জন্য নিজেকে আলাদা করে তুলে ধরতে পারে। দেব, দেবজ্যোতি সাধারণত যে নামে বহুল পরিচিত, বলেন, বিভিন্ন প্রজেক্ট এবং ক্লায়েন্টদের সঙ্গে 7Boats যেভাবে ডিল করে সেটাই অন্যদের থেকে একদম আলাদা। অনলাইন প্রোডাক্ট এবং সার্ভিসের ব্র্যান্ডিং এর সবদিক খতিয়ে দেখে 7Boats । ঠিক যেটুকু করতে বলা হয়েছে সেটা করেই দায় ঝেড়ে ফেলে না তরুণ দেবের এই সংস্থা। বরং ব্র্যান্ড তৈরির এই পুরও প্রক্রিয়ায় ক্লায়েন্টের সঙ্গে নিজেদের জড়িয়ে ফেলে। গত এক বছরে 7Boats ১০টি সংস্থায় আড়াইশোর বেশি প্রজেক্ট করেছে। তাদের গ্রহকরা হল-বেঙ্গল স্পিচ অ্যান্ড হিয়ারিং, ট্যাক্টমন্ত্র ডটকম, অ্যাপ্লাইড ইনোভেটিভ টেকনোলজি ইউএসএ, ইউনিভার্সেল ট্রেড সেন্টার, ক্রিয়েটিভ হ্যান্ডস আর্ট মেটেরিয়ালস প্রাইভেট লিমিটেড, বি স্টাইলিশ লরিয়েল স্যালোন, কনসালটিং ট্যাক্স গ্রুপ ইউএসএ, ইকোসেন্ট্রিক নাও এলএলসি এবং পিপলসুরেন্স ইউএসএ।

দেবের মনে হয়, ক্রেতা সচেতনতা প্রোগ্রাম তৈরি করা আজকাল ভীষণ চ্যালেঞ্জিং। এই চ্যালেঞ্জ নিয়ে দেব এবং তাঁর টিম গ্রাহকদের জন্য আরও কাজ করতে চায়। অভিজ্ঞতার অভাব। তাই এই ক্ষেত্রে লোক পাওয়া খুব মুশকিল। আশা করা হচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি সেই সমস্যাও মিটে যাবে। ‘আর্থিক চাপাচাপিও একটা বড় সমস্যা। যার জন্য আমরা বড় কোনও কঠিক প্রজেক্ট হাতে নিতে পারছি না। কারণ তার জন্য আরও ভালো প্রযুক্তি এবং তার সম্পর্কে জ্ঞান থাকা দরকার। টিম সদস্যদের আধুনিক ট্রেন্ডস এবং প্রযুক্তিতে শিক্ষা দেওয়া আমাদের মূল লক্ষ্য। কিন্তু এই সবকিছুই প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে। আশা করছি আগামী দিনে সেসব আমরা মিটিয়ে ফেলতে পারব, শেষ করতে করতে আশা জাগিয়ে বললেন দেব।