কোরাল লিখছেন, আপনাকে লিখতে উদ্বুদ্ধ করছেন

0

বইয়ের প্রচ্ছদে শাহরুখ খান, বইয়ের নাম 'Power of a common man', এতটুকু এসে আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন এই বই কিং খানের ওপর লেখা। হয়ত থাকতে পারে কিং খানের জীবন, সাফল্য, লড়াই ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি। বলিউড নিয়ে, সিনেমা নিয়ে, শাহরুখকে নিয়ে, ওঁর ম্যানারিজম নিয়ে, পজেটিভ রোল, নেগেটিভ রোল নিয়ে অসংখ্য লেখা হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই। কিন্তু কোরাল দাশগুপ্তর এই বইয়ের উপজীব্য এসব কিছুই নয়,বরং "মেঘমালা ভিতরে জটিল।"

কোরাল লিখছেন সাধারণ মানুষের ক্রেতা স্বত্তা নিয়ে। লিখছেন এই বিশাল বাজারে ক্রেতার আচরণ এবং তার প্রভাব নিয়ে। এবং সেটা করতে গিয়ে অনিবার্য ভাবেই এসে পরেছেন শাহরুখ খান। দুটো হাত দুদিকে প্রশস্ত করে বাজারকে জাপটে ধরতে চাইছেন, বিচিত্র কৌশলে নায়কোচিত ভঙ্গিমায় কুড়িয়ে কাচিয়ে নিতে চাইছেন জেনারেশন আফটার জেনারেশনের যৌবনের হৃদয়। যে হৃদয় মনিটাইজ্‌ড হলে প্রোডিউসরের মুখে ফুটে ওঠে দেঁতো হাসি। এমনি এমনি তো হাসি ফোটে না, সার্কাসের সেই ছেলেটা অনেক পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে করতে আজ পঞ্চাশ পেরিয়েও সিক্স প্যাকস অ্যাবসের দিলওয়ালে বাদশা এতদিনে ফাইনালি টের পেয়েছেন Power of a common man। কোরাল তাঁর এই বইয়ে ডিকোড করার চেষ্টা করেছেন সেই common man এর Power। কাহিনী হীন এই প্রবন্ধের ছত্রে ছত্রে রয়েছে অপূর্ব সব কাহিনী। ২০১৪ সালে প্রকাশিত এই বই পেয়ে গেছে প্রচুর পাঠক,কুড়িয়ে নিয়েছে অসংখ্য মানুষের দুর্দান্ত সব সমালোচনা।

বইটা আসলে লিখেছিলেন কোরাল মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টের ছাত্রদের জন্য। কনজিউমার বিহেভিয়র নিয়ে। কিন্তু গোমড়া মুখো পাঠ্য বই লিখতে চাননি কোরাল। মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টের দিদিমণি হিসেবে তিনি চেয়েছিলেন তাঁর ক্লাসরুম শিখুক সাবলীল ভঙ্গিমায়। আর এটা চাইতেই মগজে বই লিখে ফেলার পোকা নড়ে ওঠে। মাতৃত্বকালীন অবসরে তাঁর দীর্ঘদিনের ইচ্ছেটা সাদায় কালোয় ধরা দেয়। প্রথম বই লিখতে লিখতেই একজন দক্ষ লেখিকা হিসেবে কোরালের জন্ম হয়।

Non fiction দিয়ে শুরু করে কোরাল এখন fiction এর প্রেমে মজে আছেন। লিখে ফেলেছেন তাঁর দ্বিতীয় বই 'Fall Winter Collections'। ২০১৫-র জুলাই মাসে আত্মপ্রকাশ করেছে বইটি। আদ্যন্ত প্রেমের গল্প। সেখানে জীবন সুন্দর। কোরাল চুপিচুপি আমাদের জানালেন লেখাটা আসলে শুরু হয়েছিল বছর দশেক আগে। শান্তিনিকেতনে পড়ার সময়। অর্থনীতির বোরিং ক্লাসের ফাঁকে ফাঁকে উঁকি মেরেছিল লেখিকা কোরালের প্রতিভা। ডায়েরির পাতার অসংহত, বিশ্রস্ত, ছড়ানো-ছিটানো গল্পগুলোই 'Fall Winter Collections' এ অপরূপ শরীর নিয়েছে। ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছেন ওঁর তৃতীয় বইয়ের কাজ।

এখন কোরাল স্বপ্ন দেখেন অভিনব এক অ্যান্ত্রেপ্রেনিওর হবেন। শুরু করেছেন #TellMeYourStory-র Campaign। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উদীয়মান লেখকেরা জমা দিচ্ছেন তাঁদের স্টোরি। গত ১৪ই ফেব্রুয়ারী প্রকাশিত হয়েছে প্রথম গল্প। লেখিকার বয়স এগার বছর। বিপুল সারা ফেলেছে সেই লেখা। কোরাল খুশি। একজন লেখকের স্ত্রী হিসেবে, নিজে লেখিকা হিসেবে কোরাল চান দিকে দিকে ফুটে উঠুক অনন্য সব লেখক প্রতিভা। কোরালের #TellMeYourStory হয়ে উঠুক তাঁদের প্ল্যাটফর্ম। 

তবে একাজে ওঁর Resolution:-
১) সাহিত্যের নামে ট্র্যাশ সেল করবেন না।
২) কলমচিদের আর্থিক দুরাবস্থা কিভাবে ঘোচানো যায় সেটা নিয়ে সিরিয়াসলি ভাববেন।
৩) নিজে হয়ে উঠবেন একজন সফল অ্যান্ত্রেপ্রেনিওর। 

আরও পড়ুন

পিলুর পাঠশালায় বাংলা ভাষা শিখছে মুম্বই

পিলু বিদ্যার্থী। নিজে অভিনেত্রী, সঙ্গীতশিল্পী এবং একজন সামাজিক উদ্যোগপতি। পিলুও থাকেন মুম্বই। অভিনেতা আশিস বিদ্যার্থীর সঙ্গে বিয়ে হওয়ার পর মুম্বইয়ে গিয়ে আতান্তরে পড়েন অভিনেত্রী শকুন্তলা বড়ুয়ার মেয়ে পিলু। প্রধান সমস্যা ছিল ভাষা। বাংলা ভাষাকে দৈনন্দিন জীবনে টিকিয়ে রাখার লড়াই লড়েন পিলু। শুধু ভাষা নয় বাংলার সমৃদ্ধ সংস্কৃতিকেও টিকিয়ে রাখার লড়াই চালিয়ে যান। ২০০৬ থেকে ২০১৬ এই কবছরে মুম্বইয়ে কয়েকশ প্রবাসী বাঙালিকে বাংলা শিখিয়ে শেকড়েরর সন্ধান দিয়েছেন তিনি। পড়ুন তাঁর কাহিনি।