দেশের গ্রামীণ এলাকায় কাজ করছে স্মার্ট কিষাণ

0

স্মার্ট কিষাণ একটি অ্যাগ্রি টেক সংস্থা। গ্রামীণ ভারত‌ এই সংস্থার কাজের ক্ষেত্র। ছোট ও মাঝারি মাপের কৃকষকদের চাষের ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত সহায়তা করে থাকে স্মার্ট কিষাণ। পাশাপাশি, কৃষিতে স্থানীয় যুবক-যুবতীদের নিজস্ব উদ্যোগ তৈরি করতে প্রয়োজনীয় পরামর্শ ও সহায়তা করার কাজটি করা হয়ে থাকে।

স্মার্ট কিষাণ ইতিমধ্যেই গ্রামীণ ভারতের নানা এলাকায় সব্জি ও ফলের জন্যে স্মার্ট কিষাণ সেন্টার গড়ে তুলেছে। এই সেন্টারগুলি চালাচ্ছেন প্রশিক্ষিত স্থানীয় উদ্যোগীরা।

স্মার্ট কিষাণ সূত্রের খবর, এ ধরনের উদ্যোগীদের কাজ হল কৃষকের উত্পাদিত পণ্যাদির বাজারের সঙ্গে মেলবন্ধন ঘটানো। যাতে উন্নত মানের বীজ ব্যবহার করা হয়, সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখার পাশাপাশি সার, কীটনাশক ইত্যাদি ব্যবহারের ক্ষেত্রে গুণমানের দিকে নজর রাখাও হল এই উদ্যোগীদের এপর ন্যস্ত আর একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।

আপাতত স্মার্ট কিষাণ সেন্টারের কর্মপরিধি ছড়িয়ে আছে ওড়িশা ও উত্তরপ্রদেশের নানান গ্রামে। কাজ চালাতে প্রযুক্তিগত আধুনিকীকরণ করা হয়েছে বাজারের স্বার্থেই। ব্যবহার করা হচ্ছে মোবাইল প্রযুক্তি। এর মাধ্যমে ফসলের বাজারদর সম্পর্কেও কৃষক তাঁর চাহিদামতো দরকারি তথ্য পাচ্ছেন। সেইসঙ্গে কৃষক মোবাইল থেকেই জেনে নিচ্ছেন বীজ, সার ও কীটনাশক সম্পর্কে তাঁর দরকারি তথ্যাদিও।

আর একটি বিষয় হল, কৃষকদের তথ্য পরিষেবা দিতে এখন ব্যবহার করা হচ্ছে আঞ্চলিক ভাষাগুলিই‌‌‌‌। তাছাড়া, কৃষকদের বৈজ্ঞানিক চাষপদ্ধতি সম্পর্কে অবগত করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

স্মার্ট কিষাণের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী তিন বছরের ভিতর ভারতের মোট ১৫০০ গ্রামীণ এলাকায় সংস্থার নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এর ফলে উপকৃত হবেন তিন লক্ষ কৃষক।

Related Stories