রাধিকার শপ ক্লুজ সাফল্যের রাস্তা চিনে গেছে

0

সেলার বিডিং অ্যাড প্ল্যাটফর্ম শপ ক্লুজয়ের সর্বময়ী কর্ত্রী রাধিকা ঘাই আগরওয়াল এদেশের মহিলা উদ্যোগীদের ভিতর অন্যতম উল্লেখযোগ্য একটি নাম। ২০১১ সালে ১১জন কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে শপ ক্লুজয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল। গত আর্থিক বছরে সংস্থার টার্নওভার গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৭৯ কোটি টাকায়। ২০১৪ সালে এর পরিমাণ ছিল ১৪ কোটি।

রাধিকা চিন্তাভাবনায় পুরোপুরিভাবেই অন্যরকমের। যেমন, অফিসে নিজের জন্যে কোনও কেবিন তিনি রাথেননি। রাধিকার সংস্থায় এখন কর্মী হিসাবে এমন অনেক মেয়েই কাজ করছেন, যাঁদের ভিতর কেউ কেউ পরিবারের প্রথম মহিলা চাকরিজীবী। এমনকি এমন মহিলা কর্মীও রাধিকার সংস্থায় কাজ করছেন, যিনি তাঁর পরিবারের মেয়েদের ভিতর প্রথম জিনস পরেছে্ন।

রাধিকা মনে করেন, বহুক্ষেত্রে পুরুষ ও মহিলা উদ্যোগপতিদের মধ্যে ফারাক টানা হয়। যদিও এই বিভেদরেখা তৈরির কোনও যৌক্তিকতা তিনি খুঁজে পান না। এ কারণে নিজের সংস্থার ক্রমে কাছে ক্রমে রোড মডেল হয়ে উঠেছেন রাধিকা।

উদ্যোগী হিসাবে খুব অল্প সময়ের ভিতরই রাধিকা যে বিপুল সাফল্য অর্জন করেছেন, তা থেকে শিক্ষা নিতে পারেন পুরুষেরাও। রাধিকা এও দেখিয়ে দিয়েছেন, সুযোগ পেলে মেয়েরাও যে কোনও চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে পারেন সাহসের সঙ্গেই।

রাধিকার বাবা ভারতীয় সেনা বাহিনীতে চাকরি করতেন। বাবাকে চাকরিতে বদলি হতে হয়েছে বারেবারে। রাধিকা সে কারণে স্কুল জীবনে বারেবারে স্কুল পাল্টে মোট ১০টি স্কুলে লেখাপড়া করেছেন। এরপর ১৯৯৭ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত স্নাতকোত্তর স্তরে লেখাপড়া৯ করেছেন বিজ্ঞাপন ও জনসংযোগ নিয়ে। পরে নিজের বিজ্ঞাপন সংস্থা চালু করেন।

এরপর ১৯৯৯ সালে আমেরিকায় পাড়ি দেন ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটিতে এমবিএ পড়ার উদ্দেশে। এরপর Goldman Sachs ও Nordstrom এর মতো নামী মার্কিন সংস্থায় কৃতিত্বের সঙ্গে কাজ করেছেন। রাধিকা জানিয়েছেন, সেদেশে কাজের অভিজ্ঞতা থেকে দামী অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন তিনি। বিশেষত, সংস্থা পরিচালনার সংক্রান্ত কৌশলের ক্ষেত্রে শিখেছেন অনেক কিছুই।

এরপর দেশে ফিরে নিজস্ব সংস্থা শপ ক্লুজ তৈরি করেন রাধিকা। ফ্লিপকার্ট ও স্ন্যাপডিলের পরে শপ ক্লুজ-ই একমাত্র সংস্থা যার মাধ্যমে সেলার-বিডিং অ্যাড প্লাটফর্ম তৈরি করা গিয়েছে।