দৃষ্টিহীন রাজদীপকে চিনিয়েছে তাঁর দেখা স্বপ্নই

0

রাজদীপের জীবনকাহিনি নিয়ে একটা আস্ত বই লিখলে সেটা বেস্ট সেলার হওয়ার একশো শতাংশ সম্ভাবনা রাথে। ওঁর পুরো নাম রাজদীপ মানওয়ানি। মাত্র ১৩ বছর বয়সে রেটিনার দুরারোগ্য অসুখে আক্রান্ত হয়েছিলেন রাজদীপ। খুব অল্প সময়েই ভিতরই দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হতে হতে শেষে তিনি দৃষ্টিহীন হয়ে পড়েন।

হ্যাঁ, সেদিনে ভেঙে পড়েছিলেন তিনিও। রাজদীপ বললেন, মনে আছে সেইসময়ে আমার বাবা ‌আমাকে বলেছিলেন, ভেঙে যেও না। বরং ভবিষ্যতের স্বপ্ন, আশাগুলি নিজের হৃদয়ের ভিতর প্রজ্জ্বলিত করে রাখো। দেখবে একদিন তুমি সফল হতে পারবে।

বাবা আর জীবিত নেই। কিন্তু বাবার ওই কথাগুলি একদম অক্ষরে অক্ষরে ফলে গিয়েছে। রাজদীপ এখন একজন শিক্ষক হিসাবে বহু চক্ষুষ্মানকেও আলোকিত করে চলেছেন। প্রতিবন্ধীদের জীবনে পথিকৃত্ৎ হিসাবে তাঁকে স্বীকৃতি দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ও। রাজদীপ পেয়েছেন রাষ্ট্রপতি পুরস্কারও।

বরাবরের লক্ষ্য ছিল শিক্ষকতা করার। কিন্তু দৃষ্টিহীন হওয়ার সুবাদে কোথাও চাকরি পাচ্ছিলেন না একসময়ে। পরে জীবন সংগ্রাম চালাতে চালাতেই হাল ছাড়তে নারাজ অদম্য রাজদীপ শিক্ষকতার চাকরি পেয়ে যান জৈন বিশ্ববিদ্যালয়ে। রাজদীপ নিজে অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষায় স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত ছাত্র তিনি। তাঁর শিক্ষাগত যোগ্যতা এম কম, এমবিএ, পিএইচডি।

রাজদীপ আরও অনেক কিছুই। যেমন, তিনি একজন মোটিভেশনাল স্পিকার। এপর্যন্ত ১৫ হাজার পড়ুয়া তাঁর প্রেরণাদায়ক ভাষণে উপকৃত হয়েছেন। পেয়েছেন জীবন সংগ্রামের রসদ। ব্রিটানিয়া, এসবিআই, প্যান্টালুন রিটেইল, উইপ্রো কিংবা কোটাক লাইফের মতো সংস্থা মোটিভেশনাল স্পিকার হিসাবে রাজদীপকে দিয়ে একাধিকবার বক্তব্য পেশ করিয়েছেন।

এছাড়া, তিনি একজন ক্যুইজ মাস্টারও। দৃষ্টিহীন হওয়ার সুবাদেই তাঁকে সব মনে রেখে দিতে হয়। এভাবে কাজ করতে গিয়ে রাজদীপ নিজের ভিতর একজন শ্রুতিধরকেও আবিষ্কার করেছেন।

অসময়ে বাবার মৃত্যুর পরে সংসারের খরচ চালাতে, নিজের লেখাপড়ার খরচ জোগাড় করতে রাজদীপ টেলিফোন অপারেটরের কাজ করে পেশাদার জীবনটা আরম্ভ করেছিলেন। আর এখন তিনিই নিজেই সাফল্যের রোল মডেল হয়ে উঠেছেন।

এ প্রসঙ্গে রাজদীপ বলেছেন, সাফল্য দুধরনের। প্রথমত, তুলনামূলক সাফল্য। কিন্তু তুলনামূলক সাফল্য জিনিসটি বস্তুতপক্ষে আপেক্ষিক। আর এক ধরনের সাফল্য আছে - যা একান্তই আপনার নিজের জিনিস। যা একদিন নিজেই একটি তুলনা হয়ে উঠতে পারে।

এ ধরনের সাফল্যেই স্থায়ী ও তৃপ্তিদায়ক। শিক্ষক রাজদীপের পরামর্শ, তাই যদি সফল হতে চান, তাহলে নিজের দেখা স্বপ্নগুলিকে ভালোবাসুন। একদিন তাই-ই আপনাকে সফল করবে। আর আপনিও হয়ে উঠবেন অনুসরণযোগ্য একজন মানুষ।