ডমিনোজের কায়দায় চারকোল বিরিয়ানি

0

আহা! তুলতুলে মাংসের সঙ্গে জাফরান জড়ানো ভাতের কী দারুণ প্রেম! বলা হয় বিরিয়ানি হল ভাত আর মাংসের অপূর্ব যুগলবন্দি, কিন্তু তা কখনই মাংস-ভাত নয়। শরীরে তার মোগলাই তেজ। সত্যিকারের যারা বিরিয়ানি প্রেমিক তারা নাকি অপূর্ব সেই পদের জন্য দ্বিধাহীনভাবে প্রত্যাখান করতে পারেন অমৃতের পাত্র।

এক প্রান্তে বিরিয়ানি, আর অন্য প্রান্তে রসিকজন। এক রোববার ছুটির দিনে শরীর জুড়ে প্রবল আলসেমি, কিন্তু পেটে বিরিয়ানির খিদে। মুম্বই শহরে এমনই এক রবিবাসরীয় মধ্যাহ্নে মোবাইল অ্যাপের দৌলতে পরিচয় হল চারকোল বিরিয়ানির সঙ্গে। ফোন থেকে সংকেত যাওয়া‌র আধ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই দরজায় ঘণ্টা। চারকোলের ডেলিভারিম্যানের হাতে যে কেতাদুরস্ত শৌখিন বাক্স, তা খুলতেই উঁকি দিল সেই রহস্যময়ী। নরম আঁচের সুসেদ্ধ ভাত তো ভাত নয়, যেন অপূর্ব এক মায়া। মাখনসম নিটোল নরম আলু আর মাংসের টুকরো। মুখে দিলেই বন্ধ হয়ে আসে চোখ। স্বর্গের প্রসাদও কী এত সুস্বাদু..কিন্তু চারকোল নামের বিরিয়ানিওয়ালা কোথা থেকে তোমাদের আগমন। অ্যাপের মতো হাইটেক প্রযুক্তির সঙ্গে বাহারি স্বাদ মিশিয়ে বাণিজ্যের রঙ্গমঞ্চে হাজির হওয়ার আইডিয়াটা এল কোত্থেকে।

সেটা ২০১৫-র প্রথম অধ্যায়। মুম্বইয়ের আর্থিকক্ষেত্রে কর্মরত অনুরাগ মেহরোত্রা এবং কৃষ্ণকান্ত ঠাকুর ঠিক করলেন তাঁরা ব্যবসা করবেন। কিন্তু কোন ব্যবসা। এমন একটা সময়ে বিরিয়ানির ওস্তাদ শিল্পী মহম্মদ ভোলের সঙ্গে তাঁদের পরিচয়। ২০১৫-র সেপ্টেম্বরে মুম্বইয়ে খুলল চারকোল বিরিয়ানি।

চারকোলের অভিনবত্ব হল – কুইক সার্ভিস রেস্টুরেন্টের মডেল। ভারতে যার জনক পিত্জার জন্য বিখ্যাত ডমিনোজ। তালিকায় দ্বিতীয় নাম অনুরাগ-কৃষ্ণকান্তের চারকোল বিরিয়ানি। কুইক সার্ভিস রেস্টুরেন্ট হল রেস্টুরেন্ট ব্যবসার বিশেষ এক কৌশল। অর্ডার করুন বাড়িতে বসে যখন চাইবেন খাবার পৌঁছে যাবে আপনার দরজায়। ডমিনোজের মতো অর্ডার দেওয়ার ব্যবস্থাটা বেশ গুছিয়ে ফেলেছে চারকোল। মোবাইল ফোনে অর্ডার দেওয়া যায়, সঙ্গে যোগ হয়েছে ওয়েব এবং অ্যাপ। কুইক সার্ভিস রেস্টুরেন্ট মডেলের সঙ্গে মানানসই হতে হলে তো ডেলিভারি ব্যবস্থাও হতে হবে কুইক। ডমিনোজ এ জায়গাতে অনেক এগিয়ে। তবে চারকোল বিরিয়ানিও যে হাল ছাড়তে রাজি নয় তা জানান দিয়ে কৃষ্ণকান্ত বলেছেন ডেলিভারি সার্ভিস দেয় এমন বেশ কয়েকটি সংস্থার সঙ্গে চু্ক্তি করে তারাও ডালাপালা ছড়িয়ে ফেলেছেন কোলাবা থেকে বরিভেলি পর্যন্ত। শুধু মুম্বইয়ের পাঁচটা জায়গায় তাদের রেস্টুরেন্ট। অর্ডার পেলে নিকটতম রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার পৌঁছে দেওয়া হয় প্রথম। অতএব মুম্বইয়ে কুইক সার্ভিস রেস্টুরেন্টের জগতে এখন দু‌ই প্রতিদ্বন্দী পিত্জার ডমিনোজ এবং বিরিয়ানির চারকোল। স্টার্ট আপ হিসাবে চারকোলের উন্নতি এতটাই যে বেশ কয়েকজন বিনিয়োগকারীর কাছ থেকে তারা পেয়েছে মোটা অঙ্ক। শুধু মুম্বই কেন পুণে, বেঙ্গালুরুতে শাখা ছড়িয়ে দিতে চাইছে চারকোল। কৃষ্ণকান্তের কথায়, ‘‘বিরিয়ানির গুণমান হল আমাদের বৈশিষ্ট্য। দ্রুত ডেলিভারি আমাদের সম্পদ।’’ সব শেষে আসে নরম আঁচের সুসেস্ধ চালের অঞ্চলছায়ায় লুকিয়ে থাকা ঝাঁক মাংস এবং আলুর যুগলবন্দিতে। বিরিয়ানি জিন্দাবাদ।