আলিবাবার বিজ্ঞাপন পরিষেবার অনুকরণে এবার এসে গেল স্ন্যাপডিলের নেটিভ অ্যাড পরিষেবা

0

অনলাইন শপিং-এর বাজারে অভূতপূর্ব উন্নতি ও ই-কমার্সের খোলা হাটে খদ্দেরের রমরমাকে মাথায় রেখে স্ন্যাপডিল লঞ্চ করতে চলেছে তাদের বাণিজ্য সাম্রাজ্যের নবতম সংযোজন স্ন্যাপডিল অ্যাডস – এমন একটি প্লাটফর্ম যার মাধ্যমে বিক্রেতাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন ক্রেতার কাছে আরও সহজে পৌঁছে যাবে এবং নির্দিষ্ট ও কার্যকরী বিজ্ঞাপন প্রযুক্তির (advertising tools) মাধ্যমে আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। স্ন্যাপডিলের এই নিজস্ব ইন-হাউস বিজ্ঞাপন প্রযুক্তি বিক্রেতা কমিউনিটিকে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ক্রেতার আরও কাছাকাছি পৌঁছতে সাহায্য করবে এবং ওয়েব, মোবাইল ওয়েব ও অ্যাপের মাধ্যমে বিজ্ঞাপনগুলিকে সহজে খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। 

স্ন্যাপডিল অ্যাডস-এর সেলার প্লাটফর্মে রয়েছে অত্যন্ত সহজবোধ্য একটি স্বয়ংক্রিয় প্যানেল (self-service panel) যার মাধ্যমে বিক্রেতারা অতি সহজে বিজ্ঞাপন ক্রয় করতে পারেন এবং ক্যাম্পেন ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত কোনও পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই নিজেদের পণ্যের প্রোমোশন করতে পারেন। এই প্লাটফর্মে রয়েছে অত্যন্ত বিস্তারিত ক্যাম্পেন অ্যানালিটিক্সের সুবিধা যার সাহায্যে বিক্রেতারা পাবেন নির্দিষ্ট টার্গেটেড ক্যাম্পেন তৈরির সুবিধা, সেই ক্যাম্পেনের প্রভাব নির্ণয় ও রিয়াল টাইমে রিটার্ন অন ইনভেস্টমেন্টের সুবিধা।

স্ন্যাপডিল আডস-এ পণ্য বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে রয়েছে স্থানীয় বিজ্ঞাপন পদ্ধতির ব্যবস্থা যা স্ন্যাপডিলের মালিকানাধীন বিভিন্ন স্থানে ও চ্যানেলে প্রদর্শন করা যাবে। অধিকাংশ ছোট ও মাঝারী ব্যবসার ক্ষেত্রে এই ধরণের অনলাইন বিজ্ঞাপন অত্যন্ত উপকারী, কারণ এতে রয়েছে কম খরচে বিজ্ঞাপনী প্রচার করে ব্যবসায় উন্নতি করার বিশেষ সুবিধা।

যেসব বৃহৎ বিক্রেতা সংস্থা ও ব্র্যান্ডগুলি আরও বিস্তৃত প্রচারে আগ্রহী তারা এর সেলফ-সার্ভ প্লাটফর্মের মাধ্যমে তাদের বিজ্ঞাপনকে আরও কাস্টমাইজ করে নিতে পারেন।

স্ন্যাপডিলের এই নতুন পরিষেবার সম্পর্কে তাঁদের চিফ প্রোডাক্ট অফিসার আনন্দ চন্দ্রশেখরন বললেন,

স্ন্যাপডিল অ্যাডস এর ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে যোগাযোগের একাধিক ‘টাচ পয়েন্ট’ এই বিজ্ঞাপনগুলিকে বাজারে খুঁজে পাওয়ার ক্ষেত্রে আরও কার্যকরী ভূমিকা নেবে। আর এই বিজ্ঞাপন প্রযুক্তি একদিকে যেমন আমাদের ২ লাখেরও বেশী সংখ্যক বিক্রেতা কমিউনিটির বাণিজ্যিক অভিজ্ঞতাকে আরও সহজ করে তুলবে এবং তেমনই তাদের পণ্য সহজে খুঁজে পাওয়া গেলে সামগ্রিক আয়ের পরিমাণও অনেকটাই বাড়বে।


ব্যবসায়ীরা স্ন্যাপডিলের বিজ্ঞাপনী প্রযুক্তির মাধ্যমে ক্রেতার স্থান, ইচ্ছা ও ক্রয়ের ইতিহাস (buying history) ইত্যাদিকে সরাসরি তাক করতে পারেন। উল্লেখ্য, এই পরিষেবা ক্লিক-প্রতি-দাম (pay per click) পদ্ধতিতে কাজ করে এবং ব্যবসায়ীরা তাঁদের ইতিমধ্যে লাগু ক্যাশ-অন-ডেলিভারি পদ্ধতি ব্যবহার করেই এই পরিষেবা লাভ করতে পারবেন। এছাড়াও এই পরিষেবার মধ্যে রয়েছে রিপোর্টিং টুল যার সাহায্যে ব্যবসায়ীরা তাঁদের বিজ্ঞাপনের খরচের তাৎক্ষণিক প্রভাব সম্পর্কে জানতে পারবেন।


ইয়োরস্টোরির মতামত

বর্তমানে ই-কমার্স মার্কেটপ্লেস আয়ের দিক থেকে বেশ চাপে রয়েছে এবং এই পরিস্থিতিতে বাজারকে চাঙ্গা করার উল্লেখযোগ্য অনুঘটক হয়ে উঠতে পারে নেটিভ বিজ্ঞাপন। আগে গিয়ে এটাই দেখার যে এই নেটিভ অ্যাড বা স্থানীয় বিজ্ঞাপন পরিষেবা কিভাবে ব্যবসায়ী ও ই-কমার্স মার্কেটপ্লেসগুলিকে উন্নতিতে সাহায্য করে।

এই ধরণের বিজ্ঞাপন স্ন্যাপডিল প্লাটফর্মে পণ্য বিক্রয়কারী সংস্থাগুলির জন্য উল্লেখযোগ্য অতিরিক্ত আয়ের নিশ্চয়তা দেবে। আন্তর্জাতিক বাজারে অ্যামাজন ও আলিবাবা হল এমন দুই সংস্থা যারা এই ধরণের স্থানীয় বিজ্ঞাপনের সাহায্য এক বিলিয়ন ডলারের বেশী আয় করেছে। স্ন্যাপডিল এই মুহূর্তে ব্রেক ইভেন থেকে লাভের দিকে যেতে চায় এবং এই যাত্রায় তারা আলিবাবা ও তাওবাও এর ব্যবসায়িক কৌশলকেই পাখির চোখ করেছে। স্ন্যাপডিলের আগে গত দু’বছর নেটিভ বিজ্ঞাপনের পরিষেবা দিয়েছে শপক্লুস। ইয়োরস্টোরির সূত্র অনুযায়ী, গুরগাও-এর এই সংস্থাটি নেটিভ বিজ্ঞাপন থেকে সম্প্রতি ২০ লক্ষ্য টাকা লাভ করেছে।

নেটিভ অ্যাড বা স্থানীয় বিজ্ঞাপন মাধ্যমের সুযোগকে গুলে খাওয়া প্রথম দুই সংস্থা হল শপক্লুস ও ফ্লিপকার্ট এবং এই শেষোক্ত সংস্থাটি তাদের সিইও শচিন বনশাল এর নেতৃত্বে এ বছরের জুন মাসে একটি বিজ্ঞাপনী ব্যবসার অংশ তৈরি করেছে। যদিও, ফ্লিপকার্ট এখনো অফিসিয়ালি এই পরিষেবা চালু করার কথা ঘোষণা করেনি। স্থানীয় বিজ্ঞাপন (native ads) হল মূলত সেই সমস্ত বিজ্ঞাপন যা ওয়েবের বিষয়বস্তুর সঙ্গে প্রাসঙ্গিক এবং কৌশলগতভাবে প্রদর্শিত হয়। এগুলি এমন ভাবে তৈরি হয় যাতে এদের প্রদর্শন কোনভাবেই পাঠককে বিচ্যুত বা বিভ্রান্ত না করে এবং এগুলি ব্যানার বা পপ-আপ বিজ্ঞাপনের চেয়েও অনেক বেশী কার্যকরী।

মূল স্টোরি- Jai Vardhan

অনুবাদ- Sankha Ganguly