১১ মার্চ দিল্লিতে ইওর স্টোরির ভারতীয় 'ভাষা' উৎসব

0
 “Never make fun of someone who speaks broken English. It means they know another language.” H. Jackson Brown Jr.

যে দেশের নাম ভারত সেখানে এর চেয়ে বড় সত্যি আর কী হতে পারে? প্রায় একশ তিরিশ কোটির দেশে ঠিকঠাক ইংরেজি বলতে পারেন মাত্র এক কোটি কুড়ি লক্ষ মানুষ। সমগ্র জনসংখ্যার মাত্র ১০ শতাংশ। তার অর্থ হল বাকি ৯০ শতাংশ মানুষ তাঁদের মাতৃভাষাটি ভালো করে জানেন। এরপরেও কি আপনি বিশ্বাস করবেন ইন্টারনেট দুনিয়ার ৫৬ শতাংশ বিষয় ইংরেজি ভাষার দখলে। সেখানে ভারতীয় আঞ্চলিক ভাষাগুলি ০.১ শতাংশও জায়গা পায়নি। আপনি হয়ত বলবেন তাতে অসুবিধাটা কোথায়! ইন্টারনেটে কাজ করা বেশিরভাগ মানুষই ইংরেজি বোঝেন। ইংরেজি পড়তে পারেন, বলতে পারেন। মেট্রো শহরগুলোয় থাকেন। আপনি এসব ঠিকই বলছেন। কিন্তু ব্যবসা করার সুবর্ণনীতি বলে যেকোনও সুযোগ আপনার প্রতিযোগীর আগে আপনি করায়ত্ত করে ফেলুন। আর এই বিশাল বাজারের দিকে যারা তাকিয়ে আছেন তাদের জন্যে বলে রাখি, বাজারটি কিন্তু ইন্ডিয়া নয়। আসল বাজারের নাম ভারত। এবং এখন এই ভারত আপনার জন্যে অপেক্ষা করছে। এখনও অনেকটাই ভার্জিন। যেকোনও মুহূর্তে যা দখল করে ফেলবে অন্য কোনও ইন্ডিয়ান অথবা বিদেশী ইন্টারনেট কোম্পানি।

আপনার জানার জন্যে বলে রাখি...

১) ভারতে প্রায় ৯৫৭ মিলিয়ন টেলিকম ব্যবহারকারী আছেন। 
২) প্রতি মাসেই ৮-১০ মিলিয়ন ভারতীয় নতুন ইন্টারনেট পরিষেবা নেন এবং সেটা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মোবাইল মারফৎ।
৩) সমগ্র টেলিডেনসিটি ৭৮ শতাংশ যার ৪৫ শতাংশ রয়েছে গ্রামে। 
৪) ব্রডব্যান্ড পরিষেবা ভোগ করেন মাত্র ৭৬ মিলিয়ন দেশবাসী। এক্ষেত্রে নতুন কিছু করে দেখাবার সুযোগ অবশ্যই থেকে যায়।
৫) একশ মিলিয়ন মানে ১০ কোটি ভারতীয়র ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট আছে। 
৬) এঁদের ৮৫ শতাংশই মোবাইলে সোশাল নেটওয়ার্কিং করেন।
৭) পরিসংখ্যান বলছে ২০১৪ সালের জুনে গ্রামীণ ভারতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ছিলেন ৬০ মিলিয়ন। ২০১৮-য় তা ২৮০ মিলিয়নে গিয়ে দাঁড়াবে।
৮) দেশে ৫৪ শতাংশ নেট ব্যবহারকারীর বয়স পঁচিশের উর্দ্ধে। তারমধ্যে ৪০-৫০ শতাংশ গ্রামবাসী।
৯) প্রায় ৩০ শতাংশ মহিলাই নেটের ব্যবহার জানেন।
১০) নেট ব্যবহারকারীদের ৯০ শতাংশই মোবাইলে নেট করেন।

আশা করি ভবিষ্যতের ছবিটা আপনি এবার এঁকে ফেলতে পারছেন। আগামী দিনে ভারতের গ্রামে নারী পুরুষ নির্বিশেষে ইন্টারনেট আর মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা যত বাড়বে, ততই বাড়বে নেটে মাতৃভাষায় নানান বিষয়ের চাহিদাও। এই বৃদ্ধিটা অনেকটাই নির্ভর করছে দেশের আঞ্চলিক ভাষায় Digital India program এর পরিষেবা দেওয়ায় সরকারের আগ্রহের ওপর।

ইওর স্টোরি গর্বের সঙ্গে জানাচ্ছে দিল্লিতে ১১ মার্চ মঞ্চস্থ করতে চলেছে Indian Language Digital Festival এই উৎসব দিয়েই শুরু হবে ভারতীয় আঞ্চলিক ভাষায় ইওর স্টোরির ইন্টারনেট প্ল্যাটফর্মের জয়যাত্রা। আপনারা ইতিমধ্যেই জানেন আমরা ইংরেজির পাশাপাশি আরও ১২টি আঞ্চলিক ভাষায় একমাত্র লিডিং ডিজিটাল মিডিয়া। ১১ মার্চের উৎসবে সেই একমাত্র লিডিং মিডিয়া হওয়ার গৌরব উদ্‌যাপন করব আমরা। আপনাদের সকলের আমন্ত্রণ রইল। আরও বিশদে জানতে ক্লিক করুন। ইন্ডিয়ান লেঙ্গুয়েজ ফেস্টিভালের ওয়েবলিঙ্কে। http://indianlanguagefestival.com/2016/

--- --- ---

'ভাষা' নিয়ে আরও দুয়েকটি কথা

রিপোর্ট অনুযায়ী ৫০ শতাংশ উপভোক্তার কাছেই প্রোডাক্টের দামের থেকেও বেশি মূল্যবান মাতৃভাষায় প্রোডাক্টের তথ্য। সুতরাং এটা বলাই বাহুল্য, ব্যবসা করতে গিয়ে ক্রেতার সঙ্গে নিজস্ব ভাষায় কথা বলাটা জরুরি। এক্সপার্টদের মতে অদূর ভবিষ্যতে এই আঞ্চলিক ভাষায় দক্ষতাই ব্যবসায়ীদের লাভবান করবে। আপনি একজন ই-কমার্স পোর্টাল হোন, কিংবা হেল্থ কেয়ার স্টার্টআপ বা লজিস্টিক কোম্পানি, বহুভাষী হতে পারলেই বুঝব আপনার ব্যবসায় দম আছে